সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

মাংস আমদানি বন্ধ করার দাবি খামারিদের

সরকারি বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে পশুখাদ্য সরবরাহ করে উচ্চমূল্যের লাগাম, বিদেশ থেকে মাংস আমদানি বন্ধসহ ১০ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন।
মাংস আমদানি বন্ধ করার দাবি খামারিদের

বিদেশ থেকে মাংস আমদানি বন্ধ করে দেশের খামারিদের বাঁচাতে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন।

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির নেতারা বলেছেন, দেশে গবাদিপশুর মাংস উদ্বৃত্ত থাকার পরও বিদেশ থেকে আমদানি হওয়ায় তাদের ব্যবসা 'ধ্বংস হতে বসেছে'।

গাবতলী গরুর হাট গরু ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান সংবাদ সাম্মেলনে বলেন, ঢাকাসহ সারা দেশে হোটেল রেস্তোরাঁয় এখন বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। অন্যদিকে তারা গ্রাম থেকে এবং বিভিন্ন খামার থেকে গরু কিনে এনে দিনের পর দিন বাজারে বসে থাকেন, বিক্রি হয় না। অনেক সময় কম দামেও গরু বিক্রি করতে হয়।

'আমাদের তো অন্য কোনো কাজ জানা নেই, সারা জীবন ধরেই গরু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছি। আমাদের ব্যবসা এখন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। গো-খাদ্যের দাম কমালে আমরা কম দামে গরু কিনতে পারব। আমাদের ব্যবসাটা বাঁচান।' বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাপসোসিয়েশনের যাত্রাবাড়ী থানার সভাপতি এস এম শাহনুর বলেন, খামারিদের সবাইকে গরুর খাবার কিনেই খামার চালাতে হয়। গো-খাদ্যের দাম বেশি হলে খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হন।

'তখন গরুর দাম বেশি হয়ে যায়। গরু উৎপাদনে আমাদের বেশি খরচ পড়ায় মাংস বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। কিন্তু বিদেশি মাংস আরও কম দামে পেয়ে আমাদের কাছ থেকে আর নিতে চায় না। ফলে আমরা খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। গো-খাদ্যের দাম কমানোর জন্য সরকারের কাছে আমরা দাবি জানাচ্ছি।'

হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের সরাসরি হস্তক্ষেপ চেয়ে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ওয়াসিব জামান বলেন, 'আমরা মানসম্মত গরু উৎপাদন করছি। অথচ বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি করে একদিকে সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে, অপরদিকে আমরা যারা খামারি আছি, তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা হোক।' ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকে আসা খামারিদের উপস্থিতিতে এই সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ ইমরান হোসেন তাদের দশ দফা দাবি পড়ে শোনান। দাবি গুলো হলো টিসিবির মাধ্যমে পশুখাদ্য আমদানি করে প্রতিটি উপজেলায় খামারিদের মাঝে দ্রম্নত বিতরণের ব্যবস্থা করা, দেশের মাংস শিল্পকে রক্ষার জন্য ভারত থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা, বাণিজ্যিক হারের বদলে কৃষিখাতের হারে পশুর খামারের বিদু্যৎ বিল নির্ধারণ, এই শিল্পে বিশ বছর আয়কর বেয়াত দেওয়া, এন্টি ডাম্পিং ট্যাক্স আরোপের মাধ্যমে গুঁড়া দুধ আমদানিতে শুল্ক হার বাড়িয়ে শতভাগ করা, আমদানি কমিয়ে দেশে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে গুঁড়া দুধের পস্ন্যান্ট নির্মাণ করে দেশীয় শিল্পকে অগ্রাধিকার দেওয়া, আমদানি করা নিম্নমানের কাঁচামাল দিয়ে অস্বাস্থ্যকর কনডেনসড মিল্ক তৈরি বন্ধ করে দেশীয় দুধ ও কাঁচামাল দিয়ে কনডেনসড মিল্ক তৈরি, খামারিদের বিনা জামানতে কম সুধে ঋণ সুবিধা দেওয়া, ডেইরি বোর্ড গঠন, পশু ভ্যাকসিন, ওষুধ এবং চিকিৎসা সেবা সহজতর করা এবং বিনামূল্যে দেওয়া, বাংলাদেশের আমদানি নীতি অনুযায়ী, শূকর ছাড়া অন্য কোনো পশুর হিমায়িত মাংস আমদানিতে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের অনুমতি নিয়ে কয়েকটি শর্ত পূরণ করে ৩৩ শতাংশ শুল্ক দিয়ে হিমায়িত মাংস আমদানি করা যায়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Copyright JaiJaiDin ©2020

Design and developed by Orangebd


উপরে