পরীক্ষামূলক সংস্করণ

বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০ ১৩ কার্তিক ১৪২৭

বাংলাদেশ-শ্রীলংকা সিরিজ

বাংলাদেশ - শ্রীলংকা সিরিজে নতুন মোড়

বাংলাদেশ - শ্রীলংকা সিরিজে নতুন মোড়

প্রতিদিনই যেন ভিন্ন মোড় নিচ্ছে বাংলাদেশ-শ্রীলংকা সিরিজ। একদিন মনে হয়, এই বুঝি ভেস্তে গেল সিরিজটা! আরও বুঝি পেছাল দু'দলের ক্রিকেটে ফেরা! আবার পরদিনই নতুন করে আশা জাগে। মূলত কোয়ারেন্টিনের কড়াকড়ির কারণেই এসএলসির প্রস্তাব মেনে সফরে যেতে রাজি হয়নি বিসিবি। তবে বুধবার নিজ দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন করোনা টাস্কফোর্সের সঙ্গে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের আলোচনার পর সফরের পালে জোর হাওয়া লেগেছে। এমনকি বিসিবি যতটুকু ছাড় চেয়েছিল তার চেয়েও বেশি ছাড় দিচ্ছে দেশটি। ফলে বলা যায় এ সফরের পথে আর কোনো বাধা নেই।

কিছুদিন আগে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) শর্ত মেনে সেদেশে খেলতে যাওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান। এমতাবস্থায় আসন্ন লংকা সফর নিয়ে শঙ্কা দেখা দেয়। খুশির খবর, কেটে গেছে অনিশ্চয়তার কালো মেঘ। এখন শুধু আনুষ্ঠানিক ঘোষণাই বাকি। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ২৭ সেপ্টেম্বর কলম্বোর উদ্দেশে রওনা দেবে টাইগাররা।

শর্ত শিথিলে বিসিবির দৃঢ় অবস্থানের মুখে বেশ নড়েচড়ে বসেছে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ড। ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন, একরকম হোটেলবন্দি থাকা কিংবা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে না দেওয়ার নিয়মে বিসিবির সম্মতি না থাকায় সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় এসএলসি। তবে বোর্ডের নতুন প্রস্তাবেও না কি অমত তৈরি হয় সেদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। পাশাপাশি বিসিবিরও।

বাংলাদেশ দলের কোয়ারেন্টিন শিথিলে টাস্কফোর্সের সঙ্গে বৈঠকের পর নতুন এক শর্ত দিয়েছে লংকান ক্রিকেট বোর্ড। শ্রীলংকা সফরের আগে দেশেই এক সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে টাইগারদের। এরপর সেখানে পৌঁছে আইসোলেশনে থাকতে হবে আরও সাত দিন। তবে অনুশীলনের বাধ্যবাধকতায় কিছুটা নমনীয় হয়েছে এসএলসি। দূরত্ব বজায় রেখে প্রথম সপ্তাহে অনুশীলনের সুযোগ পাবে ডমিঙ্গোর দল। পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্প শুরু করা যাবে দ্বিতীয় সপ্তাহে।

সিরিজ সফলভাবে আয়োজনে আগের অবস্থান থেকে কিছুটা সরে এসেছে লংকানরা। তবে এখনো নিয়মের বেড়াজালেই আটকে আছে সিরিজের ভাগ্য। নতুন শর্তে শ্রীলংকায় দুই সপ্তাহের পরিবর্তে বাংলাদেশে এক সপ্তাহ আর শ্রীলংকায় পৌঁছে এক সপ্তাহ আইসোলেশনে থাকতে হবে টাইগারদের। শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের সহসভাপতি রাভিন ভিকরামারত্নে বলেন, 'কোভিড টাস্কফোর্সের সঙ্গে আমাদের মিটিং থেকে ইতিবাচক সিদ্ধান্তই এসেছে। সবাই সিরিজ সফলভাবে সম্পন্ন করতে চায়।'

বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ আয়োজনের বিষয়ে বৃহস্পতিবার দেশটির সেনাবাহিনীর কমান্ডার ও প্রেসিডেন্সিয়াল টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান শভেন্দ্র সিলভার সঙ্গে শ্রীলংকা ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) প্রতিনিধিদল বৈঠক করেছে। সেখানে এসএলসির নেতৃত্ব দেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট শাম্মি সিলভা।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মার্চের শুরু থেকে দেশজুড়ে কারফিউ জারি করে শ্রীলংকা। দেশটির গণমাধ্যম বলছে, করোনার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারের সঙ্গে লংকান আর্মি যৌথভাবে কাজ করছে। ফলে দ্বীপরাষ্ট্রটিতে সফরের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি সেনাবাহিনীরও সবুজ সংকেত প্রয়োজন। এ কারণে বৃহস্পতিবার শ্রীলংকা ক্রিকেটের প্রতিনিধিদল সেনাবাহিনীর সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল। এরপর সফর নিয়ে আবারও আশার আলো দেখা দেয়। একেতো প্রত্যাবর্তনের সিরিজ, তারওপর টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। তাই লংকানদের বিপক্ষে সিরিজটা ডমিঙ্গো বাহিনীর মনোযোগের কেন্দ্রে। কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সেদেশে গিয়ে অনুশীলনেও ঘাটতি রাখতে চায় না মুমিনুলরা। তবে হাম্বানটোটায় নির্ধারিত হোটেল থেকে ৪৫ কিলোমিটার দূরের স্টেডিয়ামে গিয়ে প্র্যাক্টিস যে বেশ ধকলের ব্যাপার- সেজন্য না কি গল কিংবা ডাম্বুলায় হোটেল দাবি করেছে বিসিবি। বিসিবির চাহিদা মোতাবেক হোটেল দিচ্ছে এসএলসি। এখন কোয়ারেন্টিনের বদলে ডাম্বুলায় ৭ দিন আইসোলেশনে থাকবে মুমিনুলের দল। দেশটিতে পৌঁছানোর পর প্রথম করোনা টেস্টের ফলাফল নেগেটিভ এলেই ক্রিকেটাররা অনুশীলনে নেমে পড়তে পারবেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

Copyright JaiJaiDin ©2020

Design and developed by Orangebd

close

উপরে