logo
বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৮ আশ্বিন ১৪২৭

  যাযাদি রিপোর্ট   ২৫ জুলাই ২০২০, ০০:০০  

পশুর হাট ঘিরে সক্রিয় জাল নোট কারবারিরা

গত ১৮ জুলাই পুরান ঢাকার বংশাল ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৫ লাখ টাকার জাল নোট এবং তা তৈরির বিভিন্ন উপকরণসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তাদের বিরুদ্ধে পুলিশের করা মামলায় বলা হয়, কোরবানির ঈদ সামনে রেখে এই চক্রটি জাল নোট তৈরি করছিল। কোরবানির পশুর হাট, শপিংমল ও অন্যান্য জায়গায় এই জাল নোট ব্যবহারের পরিকল্পনা ছিল তাদের।

তার আগে ৩০ জুন মিরপুর ও বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার দুটি বাসা থেকে চার কোটি টাকার জাল নোটসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করের্ যাব। ওই জাল নোটেরও লক্ষ্য ছিল কোরবানির হাট।

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে পশুর হাটগুলোতে নগদ লেনদেন বেশি হয়ে থাকে, যা আবার বড় অঙ্কের। আর এই সুযোগটি নিতেই জাল নোটের কারবারিরা এই সময়ে সক্রিয় হয়ে ওঠে।

তাই ঈদের হাট বসার আগেই এসব 'অসাধু

কারবারিদের' খুঁজে বের করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা বেড়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের পাশাপাশি পশু ব্যবসায়ী এবং সাধারণ জনগণকে নগদ লেনদেনে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সিটি করপোরেশন।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে এবার পশুর অনলাইন হাটকে জনপ্রিয় করতে বিভিন্ন পদক্ষেপের পাশাপাশি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় এবার ১৭টি অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছে। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ১১টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ছয়টি হাট বসছে।

এছাড়া দুই সিটিতে আরও দুটি স্থায়ী হাটেও পশু কেনাবেচা হবে। এছাড়া দেশের বিভিন্ন এলাকায় বসছে পশুর হাট। যদিও কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি এবার মহামারির মধ্যে রাজধানীতে কোরবানির পশুর হাট না বসানোর সুপারিশ করেছিল।

এসব হাটকে কেন্দ্র করে এক দল অসাধু চক্র জাল টাকা ছড়াতে পারে এমন চিন্তা থেকে হাটগুলোতে টাকা গণনা ও জাল নোট শনাক্তকরণ যন্ত্র স্থাপন করবের্ যাব ও বাংলাদেশ ব্যাংকসহ অন্যান্য সংস্থা।

র্

যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক আশিক বিলস্নাহ বলেন, 'জাল নোটের কারবারিরা উৎসবকেন্দ্রিক সক্রিয় হয়ে যায়। আসন্ন কোরবানির হাটকে কেন্দ্র করে এই চক্রের সদস্যরা সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছে। ইতোমধ্যে আমাদের কয়েকটি সফল অভিযানে জাল নোট উদ্ধার এবং জাল নোট তৈরির যন্ত্রপাতি জব্দ করে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।'

যেসব এলাকায় ফ্ল্যাটে বা বাড়িতে বসে জাল নোট তৈরি করে সেসব এলাকায়র্ যাবের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, 'তারপরও হাটগুলোতের্ যাবের টহল থাকবে। হাটে জাল নোট চিহ্নিত করার যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে। এরপরও আমরা বলব, জনগণ যেন সচেতন হয়ে নগদ লেনদেন করেন।'

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার মশিউর রহমান (ডিসি) বলেন, 'জাল নোটের কারবারিরা এখন অনেক চালাক হয়ে গেছে। ঈদ এলে এখন আর আগের মতো ঢাকার ভেতরে থাকে না। তারা ঢাকার বাইরে জাল নোট তৈরির কাজ করে, যেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে তাদের কাজ করতে পারে। তারা এখন ঢাকার বাইরে থেকে তাদের কাজ চালাতে তৎপর রয়েছে। ঈদে জাল টাকার ছড়াছড়ির বেশি সুযোগ পায় বলে তারা ঢাকার বাইরে থেকে কাজ করে তাদের লোকদের নিয়ে টাকাগুলো বাজারে ছড়িয়ে দেয়।'

এসব বিষয় মাথায় নিয়ে গোয়েন্দা পুলিশও সেইভাবে প্রস্তুতি নিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, 'দেশের যে অঞ্চলেই তারা কাজ করুক না কেন তাদের ধরতে আমরা সর্বদা প্রস্তুত আছি। আমাদের বিভিন্ন টিম এই বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে।'

এদিকে,র্ যাবের পরিচালক আশিক বিলস্নাহ ও ডিবির ডিসি মশিউর দুজনই পশুর হাটে জাল টাকার কারবারিদের থেকে জনগণকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন। টাকা লেনদেনের সময় একটু বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে সবাইকে অনুরোধ করেন তারা।

ঈদকেন্দ্রিক হাটগুলোতে জাল নোটের কারবারিদের দৌরাত্ম্য ঠেকাতে পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম।

তিনি বলেন, 'আমাদের পক্ষ থেকে হাটগুলোতে জাল টাকা চিনতে সচেতনতামূলক বেশ কিছু ক্যাম্পেইন করা হবে। পাশাপাশি হাটে হাটে বিভিন্ন জায়গায় সচেতনতামূলক ব্যানার ও পোস্টার দেওয়া হবে। কীভাবে জাল টাকা শনাক্ত করা যায়, সেই বিষয়ে মানুষকে জানানো হচ্ছে।'

এছাড়া জাল নোট শনাক্তে হাটগুলোতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে জানিয়ে সিরাজুল বলেন, 'হাটে হাটে আমাদের কর্মীরা কাজ করবে। আমরা বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মীদের দিয়ে এই কাজ করিয়ে থাকি। সেই ব্যবস্থা এবারও আমরা রাখছি।'

\হ
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে