রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

সখীপুরে মাছ ধরা উৎসব

সখীপুরে মাছ ধরা উৎসব

শুধু জাল আর জাল এবং মানুষের মাথা ছাড়া পানির মধ্যে আর কিছু দেখা যায় না। এ যেন এক মহোৎসব। একটি বড় মাছ কারও জালে উঠলেই হইহুল্লোড় শুরু হয়ে যায়। নানা ধরনের কথা বলে একসঙ্গে সবাই হই দিচ্ছে। ঠিক এমনি করে টাঙ্গাইলের সখীপুরে মাছ ধরা উৎসব পালন করেছে স্থানীয় মৎস্যপ্রেমীরা। সোমববার শাইল-সিন্দুর খালে দিনব্যাপী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের লোকজন মাছ ধরার উৎসবে অংশ নিয়ে মাছ শিকার করেন।

জানা যায়, প্রতি বছরের মতো এবারও শীত মৌসুমে খাল ও বিলের পানি কমতে শুরু করায় বাঘেরবাড়ি, হামিদপুর, কচুয়া, ডাকাতিয়া, নিশ্চিন্তপুর, বানিয়ারসিট, মাচিয়া, বড়চওনা, কুতুবপুর, কীর্তনখোলা, সাড়াশিয়াসহ আশপাশের গ্রামের উৎসাহী লোকজন মাছ ধরার উৎসবের তারিখ নির্ধারণ করেন। নির্ধারিত ওই দিনে শত শত লোক পলো, জাল, দড়ি ও মাছ ধরার বিভিন্ন উপকরণ নিয়ে দলবদ্ধভাবে ওই খালে হাজির হয়। ওই মাছ ধরা উৎসবে শিকারিদের অনেকেই বোয়াল, মিনার কাপ, পুঁটি, টাকি, শোলসহ দেশীয় প্রজাতির বিভিন্ন ধরনের মাছ ধরেন। পলো দিয়ে পানিতে একের পর এক চাপ দেওয়া আর হইহুল্লোড় করে সামনের দিকে অঘোষিত ছন্দের তালে তালে এগিয়ে যাওয়া চিরচেনা গ্রামবাংলার অপরূপ সৌন্দর্যময় এক অন্য রকম দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। উৎসবে পলো ছাড়াও ফারজাল, ছিটকি জাল, ঝাঁকি জাল ইত্যাদি দিয়েও মাছ ধরে অনেকে।

মাছ ধরা সমিতির সভাপতি আবেদ আলী বলেন, আমরা তারিখ নির্ধারণ করে উপজেলার খাল, বিলগুলো বাইছ করে থাকি। আমাদের সমিতিতে এক হাজার সদস্য রয়েছে।

এ বিষয়ে হামিদপুর গ্রামের আব্দুস সামাদ মিয়া বড় একটি বোয়াল ধরে মন্তব্য করেন, পলো দিয়ে মাছ ধরার আনন্দই আলাদা। আমরা প্রতি বছর এ সময় মাছ ধরি। এ যেন আমাদের একটি উৎসব।

কাকড়াজান ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম বিদ্যুৎ জানান, প্রতি বছর ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পলো দিয়ে মাছ ধরার উৎসব উদ্যাপিত হয়। এলাকাবাসী এটি আনন্দ উৎসব হিসেবে গ্রহণ করেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2020

Design and developed by Orangebd


উপরে