logo
শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  ক্রীড়া প্রতিবেদক   ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

ইতিহাসের সাক্ষী হতে কলকাতায় হাজারো বাংলাদেশি

ইতিহাসের সাক্ষী হতে কলকাতায় হাজারো বাংলাদেশি
কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে শুক্রবার পতাকা হাতে বাংলাদেশ ও ভারতীয় সমর্থকদের উচ্ছ্বাস - বিসিবি
উপমহাদেশে প্রথমবারের মতো হচ্ছে দিবারাত্রির টেস্ট। তাও আবার বাংলাদেশের! বেশি দূরে নয়, কলকাতায়। এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চায় না কেউ। ঐতিহাসিক এই ম্যাচের সাক্ষী হতে বাংলাদেশ থেকে হাজার হাজার ক্রিকেটপ্রেমী এসেছেন কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে। খেলা দেখতে এসেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও।

এমনিতেই ভারতের বিপক্ষে ক্রিকেট নিয়ে এক ধরনের উত্তেজনা কাজ করে বাংলাদেশি সমর্থকদের মনে। আর মাঠটা যদি হয় ইডেন গার্ডেন্স, তাহলে তো আর কথাই নেই। তাই তো বহু সমর্থক এরই মধ্যে কলকাতায় পাড়ি দিয়েছেন। কেউ টিকিটি পেয়েছেন, কেউ বা আবার অপেক্ষায় আছেন কালো বাজারে টিকিট পাওয়ার। কলকাতার নিউমার্কেট এলাকায় কথা হয় রফিকুল ইসলামের সঙ্গে। তিন বন্ধু সিলেট থেকে এসেছেন খেলা দেখতে। কিন্তু টিকিটের কোনো কূলকিনারা করতে পারেননি, তবে আশায় আছেন। ভারতীয় এক নাগরিক তাকে আশ্বস্ত করেছেন, একটু বেশি খরচ করলে টিকিটের ব্যবস্থা করে দেবেন।

ইডেনে দিবা-রাত্রির টেস্ট ম্যাচ দেখতে কলকাতায় সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি এসেছেন বৃহস্পতিবার। স্থানীয় সময় রাত ১১টার দিকে রাস্তায় অনেক বাংলাদেশি সমর্থককে আড্ডা দিতে দেখা গেছে। কলকাতার বিভিন্ন হোটেলে বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্ত-সমর্থকরা এসে উঠেছেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের বেশ কিছু সাপোর্টার গ্রম্নপ এসেছেন। এছাড়া ব্যক্তিগত উদ্যোগেও অনেকে এসেছেন গোলাপি বলে দিন-রাতের বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের সাক্ষী হতে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ জনের একটি শিক্ষার্থী গ্রম্নপ খেলা দেখতে এসেছেন বাংলাদেশ থেকে। তারা অবশ্য টিকিট পেয়েছেন। এবার ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী হওয়ার পালা। গ্রম্নপটির একজন শহিদুল ইসলাম বলেছেন, 'প্রথম টেস্ট যেভাবে হেরেছে বাংলাদেশ, তাতে তো খেলা দেখতেই ইচ্ছে করে না। তবুও কি মন মানে! তাই বন্ধুদের নিয়ে ইতিহাসের সাক্ষী হতে কলকাতায় চলে এলাম। এবার অনেক সমর্থক পাবে বাংলাদেশ। মুশফিকদের উদ্দেশে বলব, তোমরা মাঠে সেরাটা দাও, আমরা গ্যালারিতে আছি।'

বাংলাদেশি ক্রিকেট ভক্তদের আগমনে নিউমার্কেট, পার্ক স্ট্রিট, মারকুইস স্ট্রিট, সদর স্ট্রিটের আশপাশের হোটেলগুলো লোকে লোকারণ্য। বৃহস্পতিবার রাতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে তিল পরিমাণ জায়গা নেই কোনো হোটেলেই। স্থানীয় এক হোটেলের ম্যানেজার জানালেন, 'সব সময়ই বাংলাদেশি লোকজনে ভরা থাকে এই জায়গাটা। তবে ইডেন গার্ডেন্সের টেস্টকে কেন্দ্র করে এত যে মানুষ একসঙ্গে, এটা খুব একটা দেখা যায় না।'

তাদের থাকার ব্যবস্থা করে দিতে হোটেলগুলো সত্যিই হিমশিম খাচ্ছে।'

ভারতীয় ক্রিকেটের খোঁজ সব সময়ই রাখেন সুবীর দত্ত। তিনিও গোলাপি বলের টেস্ট নিয়ে রোমাঞ্চিত। বাঙালি বন্ধু আরিফকে পাশে রেখেই বললেন, 'এই টেস্টটা স্মরণীয় করে রাখবে বাংলাদেশ, দেখে নিও।' আরিফের মুখে হাসি ফুটল। এই হাসিটা শেষ পর্যন্ত থাকবে প্রত্যাশা কোটি কোটি বাংলাদেশি ভক্ত-সমর্থকের।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে