logo
  • Thu, 18 Oct, 2018

  ক্রীড়া ডেস্ক   ১৯ জুলাই ২০১৮, ০০:০০  

রশিদের ‘বল অব দ্য সেঞ্চুরি’!

রশিদের ‘বল অব দ্য সেঞ্চুরি’!
আদিল রশিদের বলে বোল্ড হয়ে হওয়ার পর বিরাট কোহলির চোখে-মুখে ছিল এমনই বিস্ময়। Ñওয়েবসাইট
ওয়ানডেতে আগের ২০২ ইনিংসে একবারও বিরাট কোহলিকে বোল্ড করতে পারেননি কোনো লেগস্পিনার। অবশেষে তাকে পরাভূত করতে সক্ষম হলেন আদিল রশিদ। মঙ্গলবার রাতে সিরিজের তৃতীয় এবং শেষ ওয়ানডেতে ভারতীয় অধিনায়ককে সরাসরি বোল্ড করে ফেরান রশিদ। সেটিও এমন এক ডেলিভারিতে, যাকে কি না বলা হচ্ছে ‘বল অব দ্য সেঞ্চুরি’!

আগের দুই ওয়ানডেতে একটি করে জয় পাওয়ায় লিডসে অনুষ্ঠিত ম্যাচটি হয়ে ওঠে সিরিজ নিধার্রণী। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৫৮ রান তোলে ভারত। সবোর্চ্চ ৭১ রান করেন অধিনায়ক কোহলি। জবাবে জো রুট আর ইয়ন মরগানের অবিচ্ছিন্ন ১৮৬ রানের জুটিতে ৮ উইকেট আর ৩৩ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ইংল্যান্ড। ক্যারিয়ারের ১৩তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি তুলে ব্যক্তিগত ১০০ রানে অপরাজিত থাকেন রুট। এদিন একদিনের ক্রিকেটে ইংল্যান্ডের হয়ে মাকার্স ট্রেসকোথিকের সবোর্চ্চ ১২টি সেঞ্চুরির রেকডর্ ভেঙে দেন তিনি। এছাড়া অধিনায়ক মরগান করেন ৮৮ রান।

ভারতের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জেতায় এ নিয়ে টানা আটটি দ্বিপাক্ষিক ওয়ানডে সিরিজ জিতল ইংল্যান্ড। ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন রশিদ। তবে ওই তিন উইকেটের মধ্যে কোহলির উইকেটটা ছিল স্পেশাল। ম্যাচের ৩০তম ওভারের প্রথম বলেই ভারতীয় দলপতিকে সরাসরি বোল্ড করেন রশিদ। ওভার দ্য উইকেটে এসে লেগস্ট্যাম্পের খানিকটা বাইরে ডেলিভারি দেন তিনি। ঘণ্টায় ৫১ মাইল বেগে ছোড়া ডেলিভারিটা ৫.৭ ডিগ্রি ঘুরে কোহলির অফস্ট্যাম্প ভেঙে দেয়। বোল্ড হওয়ার পর বিস্ময়ে কিছুক্ষণ উইকেটের দিকে তাকিয়ে ছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক।

রশিদের ওই ডেলিভারি নিয়ে ক্রিকেট বিশ্লেষকরা প্রশ্ন তুলেছেন- ইংলিশ লেগস্পিনার কি এই শতাব্দীর সেরা বলটাই ছুড়লেন? অবশ্য ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে শেন ওয়ানের্র করা বলটার তুলায় রশিদের বলটা পিছিয়ে থাকবে। ১৯৯৩ সালের অ্যাশেজে ইংলিশ ব্যাটসম্যান মাইক গ্যাটিংয়ের অফস্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেন ওয়ানর্। ওটা ছিল ইংল্যান্ডের মাটিতে অজি তারকার প্রথম ডেলিভারি। বলটা লেগস্ট্যাম্পের অনেক বাইরে পড়েছিল। গ্যাটিং ঘুণাক্ষরেও ভাবতে পারেননি ওটা আঘাত হানবে তার অফস্ট্যাম্পে।

যাই হোক, ক্রিকেটের সব ধরনের ফরম্যাট মিলিয়ে আগের ৩৭২ ইনিংসে কোনো লেগি পারেনি কোহলিকে বোল্ড করতে। রশিদ পেরেছেন। সেজন্যই এই ডেলিভারিকে নিজের ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ‘সন্তোষজনক’ ডেলিভারি হিসেবে অ্যাখা দিয়েছেন তিনি, ‘ওটা ছিল আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে সন্তোষজনক ডেলিভারি। কারণ, ও (কোহলি) বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানদের একজন।’

কোহলি অবশ্য কিছু বলেননি। তবে ¯েøা পিচে দুই ইংলিশ স্পিনার রশিদ আর মঈন আলীর বোলিংরে প্রশংসা করেছেন। সঙ্গে হতাশা ঝেরেছেন নিজেদের পারফরম্যান্স নিয়েও। হতাশ হওয়ারই কথা। ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও যে শেষতক ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারাতে হলো ভারতকে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

উপরে