logo
  • Fri, 21 Sep, 2018

  অনলাইন ডেস্ক    ১৩ জুলাই ২০১৮, ০০:০০  

পরাজয়ের বেদনায় পুড়ছেন কেন

ক্রীড়া ডেস্ক

চেয়েছিলেন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হতে। পারলেন না। ফাইনালে খেলার স্বপ্নও পূরণ হলো না হ্যারি কেনের। বুধবার ক্রোয়েশিয়ার কাছে হেরে রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে কেনের ইংল্যান্ড। এভাবে ছিটকে যাওয়াটা বড্ড পোড়াচ্ছে তাকে।

এবারের আসরে ৬ গোল করে এখন পযর্ন্ত সবোর্চ্চ গোলদাতা কেন। হয়তো গোল্ডেন বুটটা উঠতে যাচ্ছে তার হাতেই। কিন্তু কি হবে এই গোল্ডেন বুট দিয়ে? কেন তো চেয়েছিলেন বিশ্বকাপ। চেয়েছিলেন ইংল্যান্ডের দীঘর্ ৫২ বছরের আক্ষেপটা ঘুচিয়ে দিতে। তা আর হলো না। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে শুরুতে এগিয়ে গিয়েও অতিরিক্ত সময়ে স্বপ্নভঙ্গ হলো ইংল্যান্ডের। এই হারটা কেনের ভেতরটা একেবারে জ্বালিয়ে দিচ্ছে। ম্যাচ শেষে কেন বলেছেন, ‘আমরা ব্যথিত। আমরা নিজেদের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছিলাম। ম্যাচটা খুব কঠিন ছিল, ৫০-৫০ সুযোগ ছিল দুই দলের।’

তবে কেনের বিশ্বাস, এই শোক কাটিয়ে ঘুরে দঁাড়াবে ইংল্যান্ড। নিজেদের অজের্নও গবির্ত তিনি। তাদের দলটি যে রাশিয়া বিশ্বকাপে এই পযর্ন্ত আসতে পারবে, টুনাের্মন্ট শুরু হওয়ার আগে কেউ ভাবেনি। তবে ১৯৯০ পরবতীর্ ইংল্যান্ডের সোনালি প্রজন্ম যা পারেনি, তা করে দেখিয়েছে এবারের দলটি। দীঘর্ ২৮ বছর পর সেমিফাইনালে উঠেছে তারা। কেন-লিনগাডর্রা তাই গবর্ করতেই পারেন। অধিনায়ক কেনও তাই জানালেন। টুইট বাতার্য় এই প্রসঙ্গে তিনি, ‘এটা আমাকে খুব কষ্ট দিচ্ছে, খ্বু। তবে সেটা কিছুক্ষণের জন্য। আমাদের অজের্ন গবর্ করতে পারি। আমরা ঘুরে দঁাড়াব। পাশে থাকার জন্য সবাইকে অনেক ধন্যবাদ।’

কেনের মতোই ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে হারটা পোড়াচ্ছে জেসে লিনগাডের্ক। তবে নিজেদের অজের্ন তিনিও গবির্ত, ‘আমাদের দলটা অসাধারণ একটা দল, যাদের শেখার আগ্রহ ছিল এবং তারা মাঠে নিজেদের সবটুকু দিয়ে লড়েছে। আমরা আমাদের মাথা উঁচুতে রাখতে পারি। সবাইকে ধন্যবাদ সমথর্ন দেয়ার জন্য। আমরা এখানে থামব না।’

শুধু কেন-লিনগাডর্ নন, ইংল্যান্ড দলের বাকি ফুটবলারদেরও একই অবস্থা। ড্রেসিংরুম, ট্রেনিং আর খেলার মাঠ সবখানেই প্রতিটা মুহূতর্ দারুণ কাটছিল তাদের। কোচ গ্যারেথ সাউথগেটের অধীনে রাশিয়ায় এসে তারা হয়ে উঠেছিল একটি সুখী পরিবার। তাদের সুখের ঘরের চাল ফুটো হয়ে এখন নেমে এলো দুঃখের বৃষ্টিধারা। ভগ্ন হৃদয়ে আগামীকাল ইংলিশ ফুটবলাররা বেলজিয়ামের বিপক্ষে নামবেন তৃতীয় হওয়ার লড়াইয়ে। কিন্তু এই ম্যাচে খেলতে চাননি দলের অধিনায়ক সাউথগেট, ‘সত্যি কথা বলতে, এই ম্যাচটা কোনো দলই খেলতে চায় না।’

ইচ্ছা না থাকলেও তৃতীয় স্থান নিধার্রণী ম্যাচের জন্য এখন প্রস্তুতি নিতে হবে ইংল্যান্ডকে। গ্রæপ পবের্র প্রতিপক্ষ বেলজিয়ামকে হারিয়ে অন্তত নিজেদের সান্ত¡না দিতে পারবে দলটি। যদিও এই পরিস্থিতিতে মাঠে নামতে দলের খেলোয়াড়রা মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকবেন কিনা সেটাই বড় বিষয়। সাউথগেটও মনে করছেন তার শিষ্যদের আগের অবস্থায় পাওয়া কঠিন হবে। তবে দলের খেলোয়াড়দের ওপর বিশ্বাস আছে তার, ‘সবসময় আমরা সম্মান আর মযার্দা নিয়ে খেলার চেষ্টা করেছি এবং জিতেছি। দলের সবাইকে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে স্বাভাবিক অবস্থায় পাওয়া কঠিন হবে। কারণ এই মুহূতের্ ড্রেসিংরুমের অবস্থা করুণ। তবে আমি মনে করি, আমার ছেলেরা ঘুরে দঁাড়ানোর জন্য প্রস্তুত থাকবে। আমাদের হাতে দুদিন সময় আছে। আমি এতটুকু নিশ্চয়তা দিতে পারি, দলের খেলোয়াড়রা সম্মান দিয়েই লড়বে।’
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

উপরে