logo
সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০, ২৯ আষাঢ় ১৪২৬

  ক্রীড়া ডেস্ক   ২৯ মে ২০২০, ০০:০০  

রোডসকে না রাখার কারণ খুঁজে পান না মাশরাফি

আমি ব্যক্তিগতভাবে স্টিভ রোডসের যাওয়ার কোনো কারণ খুঁজে পাইনি। এ জন্য পাইনি, আমার ওপর দিয়েই তো সব গিয়েছে। একজনই যথেষ্ট ছিল, আমার মনে হয়। সাধারণত এ ধরনের টুর্নামেন্ট খারাপ গেলে একজনের ওপর দিয়েই ঝড় বয়ে যায়।

রোডসকে না রাখার কারণ খুঁজে পান না মাশরাফি
বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক কোচ স্টিভ রোডসের সঙ্গে সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা -ফাইল ফটো

প্রায় বছরখানেক আগে বাংলাদেশ ক্রিকেটে স্টিভ রোডস অধ্যায় শেষ হয়েছে। তবে পেছন ফিরে তাকিয়ে এখনো সেটির কোনো কারণ খুঁজে পান না জাতীয় দলের সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। বাংলাদেশের সফলতম ওয়ানডে অধিনায়কের মতে, ফলাফলের বিচারে রোডস ছিলেন সবচেয়ে সফল কোচদের একজন। ২০১৯ বিশ্বকাপের ব্যর্থতা ও প্রাসঙ্গিক অন্যান্য আলোচনায় এমন এক মন্তব্য করেন মাশরাফি। স্টিভ রোডসের দায়িত্বের সময়টায় ওয়ানডে অধিনায়ক ছিলেন মাশরাফি। কোচ হিসেবে বেশ কিছু সাফল্যও পেয়েছেন সাবেক এই ইংলিশ ক্রিকেটার। এ বছর টি২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত ছিল তার চুক্তির মেয়াদ। কিন্তু গত বিশ্বকাপের পরই শেষ হয় এ দেশের ক্রিকেটে তার পথচলা। ব্যর্থতার দায়ে স্রেফ অধিনায়কের ওপর ঝড় বয়ে যাওয়াই ছিল যথেষ্ট, কোচকে জড়ানোর প্রয়োজন ছিল না বলে জানালেন বাংলাদেশের তখনকারের ওয়ানডে অধিনায়ক, 'আপনি যদি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন, এসব ক্ষেত্রে একেকজনের একেক রকম মত থাকতে পারে, আমি ব্যক্তিগতভাবে স্টিভ রোডসের যাওয়ার কোনো কারণ খুঁজে পাইনি। এ জন্য পাইনি, আমার ওপর দিয়েই তো সব গিয়েছে। একজনই যথেষ্ট ছিল, আমার মনে হয়। সাধারণত এ ধরনের টুর্নামেন্ট খারাপ গেলে একজনের ওপর দিয়েই ঝড় বয়ে যায়।' আর তাই স্টিভ রোডসকে 'বলির পাঁঠা' বানানোর কোনো যুক্তি খুঁজে পান না মাশরাফি, 'আমার ক্ষেত্রে হলে (বাদ দিলে), বলির পাঁঠা বলতাম না। আমার ক্ষেত্রে এটিই বাস্তবতা, 'পারফর্ম করোনি, তুমি সাইড হও।' কিন্তু রোডসের ক্ষেত্রে, পারফরম্যান্সই যদি বিবেচনায় নেয়া হয়, ফলাফলের দিক থেকে তিনি কিন্তু বাংলাদেশের সেরা কোচদের একজন, যদি তার পরিসংখ্যান দেখা হয়। জাতীয় দলের সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক আরও যোগ করেন, 'অনেক কোচই দায়িত্ব নেয়ার পর শুরুতে সময় লাগে। কিন্তু রোডসের সময় দল কেবল শুরুতে, ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে দুটি টেস্ট হেরেছে। এরপরই দল জিততে শুরু করেছে। তার আমলেই বাংলাদেশ প্রথম ট্রফি জিতেছে, সাকিব-তামিমকে ছাড়া এশিয়া কাপ ফাইনাল খেলেছে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাদের দেশে ও আমাদের দেশে ওয়ানডে সিরিজে জয় এসেছে। সেদিক থেকে বললে রোডস সবচেয়ে সফল কোচ ছিলেন।' ২০১৯ বিশ্বকাপে অনেক উচ্চাশা নিয়ে গিয়েও প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেনি বাংলাদেশ। ১০ দলের টুর্নামেন্টে অবস্থান ছিল অষ্টম। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানসহ বোর্ড কর্তারা তখন যদিও দলের পারফরম্যান্স নিয়ে সন্তুষ্টির কথাই বলেছিলেন। কোচ রোডস দলের সঙ্গে দেশে ফিরেছিলেন ইংল্যান্ড থেকে। কিন্তু আচমকাই জানানো হয়, তিনি আর থাকছেন না। বোর্ড তখন বলেছিল, দুই পক্ষের পারস্পরিক সমঝোতায় এটি হয়েছে। তবে পরে বিসিবি সভাপতির কথায় স্পষ্ট হয়ে যায়, বিসিবিই তাকে রাখতে চায়নি। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পারফরম্যান্সের কারণে রোডসকে না রাখাটাও বিস্ময়কর লেগেছে মাশরাফির কাছে, 'শুধু বিশ্বকাপের কথা দিয়ে যদি বিবেচনা করা হয়, আমার কথা আগেই বলেছি, আমি ডান অ্যান্ড ডাস্টেড, পারফর্ম করতে পারিনি, আউট করে দিক। সমস্যা নেই। কিন্তু রোডসের কথা বললে, সে কিন্তু বলতে পারে যে, বিশ্বকাপে শেষ দুই ম্যাচের আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ সেমিফাইনালের দৌড়ে ছিল। আমি তাকে কোনো দিক থেকে অসফল দেখি না। আমার মতামত যদি জানতে চান, আমি বলব, রোডস খুবই দুর্ভাগা কোচ, দল পারফর্ম করার পরও তাকে চলে যেতে হয়েছে।' বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সিদ্ধান্ত নিয়ে অবশ্য তার আপত্তির কিছু নেই বলে জানালেন মাশরাফি, 'তবে বোর্ডের সিদ্ধান্তকে সবাইকে স্বাগত জানাতে হবে। সহজভাবে দেখতে হবে। সেই জায়গা থেকে কেন নয়! তবে আপনি যেহেতু ব্যক্তিগত মত জিজ্ঞাসা করেন, আমি তাই ব্যক্তিগতভাবেই এসব কিছু বললাম।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে