logo
মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

মেয়র হলে মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করব: আতিক

মেয়র হলে মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করব: আতিক
রাজধানীর উত্তরায় মাসকট পস্নাজার সামনে নির্বাচনী সমাবেশে বক্তৃতা করেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম -যাযাদি
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খান উত্তরার জামিয়াতুল মাদ্রাসা কমিটিরও সভাপতি। এই কাউন্সিলরের সমর্থনে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা রুহুল আমিন খান মাদ্রাসার শিক্ষকসহ শতাধিক ছাত্র নিয়ে সমাবেশে উপস্থিত হয়েছেন। তাঁদের সবাইকে নৌকা ও ঝুড়ির সমর্থনে স্স্নোগান দিতে দেখা যায়।

সোমবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে আ. লীগের মেয়র পদপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম এই সমাবেশে যোগ দেন। তিনি বলেন, 'যত বেশি লোক ভোট দিতে আসবেন তত বেশি ভোট নৌকায় পড়বে।'

বেলা ১১টার আগে থেকেই মাসকট পস্নাজার সামনে এক নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সমর্থিত নেতা-কর্মী, আওয়ামী লীগ নেতারা ছোট ছোট মিছিলে উপস্থিত হতে থাকেন। সেখানে ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর পদপ্রার্থী ঝুড়ি প্রতীকের মোতালেব মিয়ার সমর্থকদেরও উপস্থিত হতে দেখা যায়।

১ এবং ৪৭ নম্বরের কাউন্সিলরদের সমর্থক নেতা-কর্মীদের ভিড়ে বন্ধ হয়ে যায় মাসকট পস্নাজার সামনের সড়কের যান চলাচল।

সমাবেশে আতিকুল ইসলাম বলেন, 'আর মাত্র দুদিন নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারব। আর এক মুহূর্তও সময় নষ্ট করা যাবে না।' তিনি আওয়ামী লীগের সকল নেতা-কর্মীকে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারপত্র বিলি ও নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।

আতিকুল ইসলাম উত্তরাবাসীর উদ্দেশে বলেন, তরুণদের জন্য মাদক একটি বড় চ্যালেঞ্জ। মেয়র নির্বাচিত হলে উত্তরা এলাকায় কাউন্সিলর, আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দদের নিয়ে মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করবেন।

আতিক বলেন, 'আমি যদি আপনাদের ভোটে নির্বাচিত হই তাহলে আমি কথা দিতে চাই প্রতিটি ওয়ার্ডে, প্রতি মাসে ওই এলাকার জনগণের সামনে মেয়র এবং কাউন্সিলররা উপস্থিত হবেন। অর্থাৎ জনগণের মুখোমুখি হয়ে তাদের কথা শুনবো, অভিযোগ জানবো, তাদের প্রশ্নের উত্তর দেব। যার মাধ্যমে সিটি করপোরেশন, মেয়র এবং কাউন্সিলর জনগণের মুখোমুখি হয়ে জবাবদিহিতার আওতায় আসবে।'

আতিকুল ইসলাম নেতাকর্মীদের সড়কে জনদুর্ভোগ না করতে বলেন। তিনি বলেন, 'জনদুর্ভোগ করলে ভোট বাড়বে না, কমে যাবে।'

নির্বাচনী পথসভায় মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিয়ে প্রশ্নের জবাবে আতিকুল ইসলাম বলেন, 'আমি চাই না আমার প্রচারে কোনো ছাত্র-শিক্ষার্থী আসুক। এটা মোটেও ঠিক না।'

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান, ১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আফছার উদ্দিন খান, জামিয়াতুল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা রুহুল আমিন খান, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি মতিউর রহমানসহ ঢাকা ১৮ আসনের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

আতিকুল ইসলাম এই আসনের ৫১, ৫২, ৫৩, ৫৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাউনিয়া, নলভোগ, কালিয়ারটেক, কামারপাড়া এলাকায় নির্বাচনী প্রচার ও গণসংযোগ করছেন।

দিকে, নির্বাচনী প্রচারের কাজে নগরজীবনে 'অনাকাঙ্‌িক্ষত সমস্যা' সৃষ্টি হচ্ছে স্বীকার করে সেজন্য ক্ষমা চেয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম।

তার নির্বাচনী প্রচার বিভাগের পক্ষ থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নির্বাচনী প্রচারে শব্দযন্ত্রের ব্যবহার, প্রচার দপ্তরে বিপুল মানুষের জনসমাগমের ফলে নাগরিক অসুবিধার সৃষ্টি হচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, 'ঢাকার সকল সমস্যা চিহ্নিত করে সকলের পরামর্শে তার পূর্ণ সমাধান খুঁজতে, আমি, মেয়র পদপ্রার্থী মো. আতিকুল ইসলাম, আপনার এলাকায় আমাদের নির্বাচনী দপ্তর স্থাপন করেছি। প্রতিদিন প্রচুর দলীয় নেতাকর্মী এবং শুভাকাঙ্‌ক্ষী আমাদের এই দপ্তরে আসছেন এবং তাদের সকলের সঙ্গে কথা বলার জন্য অনেক সময় আমাকে শব্দযন্ত্রের ব্যবহার করতে হচ্ছে। বিপুল পরিমাণে জনসমাগম এবং শব্দের কারণে আপনার এবং আপনার পরিবারকে হয়তো সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এমন কোনো অনাকাঙ্‌িক্ষত সমস্যা যদি হয়ে থাকে তার জন্য আমি এবং আমার নির্বাচনী দলের সকলের পক্ষ থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করছি।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে