logo
  • Wed, 21 Nov, 2018

  যাযাদি রিপোটর্   ১০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

তফসিল ঘোষণা একতরফা নিবার্চনের ইঙ্গিত: রিজভী

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, রাজনৈতিক সংকট সমাধান হওয়ার আগেই আকস্মিকভাবে নিবার্চনের তফসিল ঘোষণা একতরফা নিবার্চন অনুষ্ঠানেরই সুস্পষ্ট ইঙ্গিত। সকল বিরোধী দলের দাবি ছিল, মাঠ সমতল এবং সুষ্ঠু রাজনৈতিক পরিবেশ নিশ্চিত করে যেন তফসিল ঘোষণা করা হয়। এমনকি পযার্প্ত সময়ও রয়েছে কমিশনের হাতে। রাজনৈতিক দলগুলোর অনুরোধে নিবার্চন পিছিয়ে দিলে আইনের কোনো ব্যত্যয় ঘটত না।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কাযার্লয়ে শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, সকল রাজনৈতিক দলের মতামতকে উপেক্ষা করে শুধু সরকারের নিদেের্শ একাদশ সংসদ নিবার্চনের তফসিল ঘোষণা করেছে নিবার্চন কমিশন। নিবার্চনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলতে কিছু নেই। বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতা-কমীের্দর ‘পাইকারি হারে’ গ্রেপ্তার অব্যাহত রয়েছে। পুলিশি তল্লাশির নামে বাড়িতে বাড়িতে তাÐব চলছে। চারদিকে শুধু আতঙ্ক আর ভয়। তিনি বলেন, সবোর্চ্চ আদালত কতৃর্ক আওয়ামী লীগের কয়েকজন মন্ত্রী ও সাংসদ দÐিত হলেও তারা স্বপদে বহাল আছেন। কিন্তু সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে ‘মিথ্যা’ মামলায় সাজা দিয়ে কারাবন্দি করে সুচিকিৎসার অধিকারও কেড়ে নেয়া হয়েছে। আবারও একতরফা নিবার্চন করতে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা না দিয়ে জোরপূবর্ক কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সরকারের উদ্দেশে রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘সময় অত্যাসন্ন, যে কারাগার অন্যের জন্য তৈরি করা হয়, সেই কারাগারে নিজেদের ঢুকতে হয়। এটাকেই বলে প্রকৃতির প্রতিশোধ। নিজের খেঁাড়া গতের্ নিজেদের পড়তে হয়, এ বিষয়টি ভাবার জন্যও ক্ষমতাসীনদের অনুরোধ করছি।’ তিনি অভিযোগ করেন, আসলে স্বাধীন বিচার বিভাগ ও আওয়ামী লীগ একসঙ্গে চলতে পারে না। অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ সকল রাজবন্দীকে মুক্তি দিয়ে দেশের সংকট সমাধান করতে হবে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবি মেনে নেওয়ার জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

নিবার্চনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে নিবার্চনে সব দলের অংশগ্রহণ ও প্রচারে সবার সমান সুযোগ সৃষ্টি করার কথাও বলেন রিজভী।

রাজশাহীতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশের বিষয়ে বিএনপির মুখপাত্র রিজভী বলেন, সমাবেশকে কেন্দ্র করে রাজশাহী ও আশপাশের জেলায় চলছে গ্রেপ্তার অভিযান। নেতা-কমীর্রা যেন সমাবেশে যোগ দিতে না পারেন, সে জন্য শহরে ঢোকার বিভিন্ন পয়েন্টে তল্লাশি চৌকি বসিয়ে চিরুনি অভিযান চালানো হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের বিপরীত কমর্কাÐ চলছে। গতকাল সিইসি বলেছেন, নিবার্চনের ভ‚মি সমতল থাকবে।

সিইসির উদ্দেশে রিজভী প্রশ্ন করেন, ‘নেতা-কমীের্দর গ্রেপ্তার, হয়রানি, সমাবেশে বাধা প্রদানকে কি সমতল ভ‚মি বলে? রাজনৈতিক ময়দান সম্পূণর্ভাবে সরকারের অনুকূলে সমতল রাখার যাবতীয় বন্দোবস্ত করছে নিবার্চন কমিশন।’

রিজভী বলেন, বৃহস্পতিবার ইঞ্জিনিয়াসর্ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপির উদ্যোগে ‘বিপ্লব ও সংহতি’ দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভাও পÐ করে দিয়েছে পুলিশ। সেখান থেকে অনুষ্ঠানের মাইকসহ অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে যায় পুলিশ। পুলিশ সেখান থেকে যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা জি এস বাবুলসহ ১৮ জনের বেশি নেতা-কমীের্ক গ্রেপ্তার করেছে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, স্বনিভর্রবিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহদপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন প্রমুখ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে