logo
শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ১৬ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

কমছে শীতের তীব্রতা, রোগে আক্রান্ত পৌনে ৪ লাখ

দেশের অনেক এলাকায় গড়ে তাপমাত্রা বাড়ছে। আজ বৃহস্পতিবার তাপমাত্রা আরও কিছুটা বাড়তে পারে। কমে আসছে শৈত্যপ্রবাহের এলাকাও। বুধবার ঢাকায় সূর্য উঠে, কমে আসে শীতের তীব্রতাও।

তবে রংপুর বিভাগের পুরোটা ও রাজশাহী বিভাগের বেশ কিছু অঞ্চলের ওপর দিয়ে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়। এটি অব্যাহত থাকতে পারে। বৃহস্পতিবার থেকে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে পারে। তবে আগামী সপ্তাহে আবারও তাপমাত্রা কমে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

বুধবার আট জেলার ওপর দিয়ে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়। মঙ্গলবার ১১ জেলায় শৈত্যপ্রবাহ ছিল। আজ থেকে শৈত্যপ্রবাহ কমে যাওয়ার পাশাপাশি তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে পারে।

বুধবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি ছিল তেঁতুলিয়ায়। মঙ্গলবার ছিল একই জায়গায় ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এদিকে ঢাকায় বুধবার দুই ডিগ্রি তাপমাত্রা বাড়ে, গতকালের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ দশমিক ২, মঙ্গলবার ছিল ১২ দশমিক ৭ ডিগ্রি। একইভাবে বুধবার ময়মনসিংহে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা প্রায় একই ছিল। সেখানে বুধবার তাপমাত্রা ১৩ দশমিক ৫, মঙ্গলবার ছিল ১৩ দশমিক ২, চট্টগ্রামে মঙ্গলবারের মতোই বুধবারও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ দশমিক ২, সিলেটে আবারও তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে যায়, গতকাল সেখানে সর্বনিম্ন ১২ দশমিক ২, মঙ্গলবার ছিল ১৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজশাহীতে তাপমাত্রা প্রায় একই আছে, গতকাল সর্বনিম্ন ৯ দশমিক ৮, মঙ্গলবার ছিল ৯ দশমিক ২, রংপুরেও তাপমাত্রা প্রায় একই আছে- বুধবার সর্বনিম্ন ১০ দশমিক ৮, মঙ্গলবার ছিল ১০ দশমিক ৬ ডিগ্রি।

খুলনায় গতকাল তাপমাত্রা বাড়ে। সেখানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩, মঙ্গলবার ছিল ১১ দশমিক ৮ এবং বরিশালে দুই ডিগ্রি বেড়ে গতকাল ১২ দশমিক ৩, যেখানে মঙ্গলবার ছিল ১০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান বলেন, 'এখনও বেশ কিছু এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ বইছে। রংপুর বিভাগের পুরোটা ও রাজশাহী বিভাগের কিছু এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত আছে। কিছু এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ কমেছে। বৃহস্পতিবার আরও কিছু এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ কমে গিয়ে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে পারে। আগামী সপ্তাহে আবারও তাপমাত্রা কমার আশঙ্কা করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে