logo
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ১১ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

চট্টগ্রাম-৮ উপনির্বাচন

সুফিয়ানের নামে ২১ মামলা, মোছলেমের আয় সম্মানিতে

বাংলাদেশ জাসদের নেতা মইন উদ্দীন খান বাদলের মৃতু্যর পর শূন্য হওয়া চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচন আগামী ১৩ জানুয়ারি। এ আসনে সংসদ সদস্য (এমপি) নির্বাচিত হতে লড়ছেন ছয় প্রার্থী। তাদের মধ্যে রয়েছেন আওয়ামী লীগের মোছলেম উদ্দিন আহমদ ও বিএনপির মোহাম্মদ আবু সুফিয়ান।

ক্ষমতায় না থাকা বিএনপির প্রার্থীর হলফনামায় দেখা যায়, ২০১২, ২০১৫ ও ২০১৮ সালে আবু সুফিয়ানের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে ১৯টি মামলা হয়েছে। মামলাগুলোর সবই বিচারাধীন বা তদন্তাধীন। এছাড়া ২০১২ ও ২০১৫ সালে করা দুটি মামলার একটিতে খালাস, অন্যটিতে অব্যাহতি পেয়েছেন তিনি।

ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগের প্রার্থীর হলফনামায় দেখা যায়, মোছলেম উদ্দিনের বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই। বরং সম্মানী ও পুরস্কার বাবদ তার বছরে আয় দুই লাখ ৬৪ হাজার টাকা।

পেশায় তারা দুজনেই ব্যবসায়ী। তাদের মধ্যে বিএনপির আবু সুফিয়ানের ব্যাংকে ঋণ ২৩ লাখ ৭৩ হাজার ৮৫৬ টাকা। আওয়ামী লীগের মোছলেম উদ্দিনের ইউসিবিএলের (ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড) চট্টগ্রাম দামপাড়া শাখায় ৩৪ লাখ ৯০ হাজার ৪২২ টাকা ঋণ রয়েছে।

বছরে আয়ের দিক থেকে বিএনপির প্রার্থীর চেয়ে এগিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী। মোছলেম উদ্দিনের বছরে আয় ২৪ লাখ ৪১ হাজার ৩৬৪ টাকা। তার মধ্যে কৃষি খাত থেকে ২০ হাজার, ব্যবসা থেকে ২১ লাখ ৫৭ হাজার ৩৬৪ টাকা এবং সম্মানী ও পুরস্কার থেকে বছরে আয় দুই লাখ ৬৪ হাজার টাকা। এছাড়া তার ওপর নির্ভরশীলদের বাড়ি/অ্যাপার্টমেন্ট/দোকান/অন্যান্য ভাড়া বাবদ বছরে আয় ১০ লাখ ৪৪ হাজার টাকা।

বাৎসরিক আয়ে পিছিয়ে আবু সুফিয়ান। তার বছরে আয় ১০ লাখ ২৭ হাজার ৬৫৬ টাকা। এর মধ্যে বাড়ি/অ্যাপার্টমেন্ট/দোকান/অন্যান্য ভাড়া থেকে দুই লাখ ১৫ হাজার ৬২৫, ব্যবসা থেকে তিন লাখ দুই হাজার ৭০০ এবং পুরানো ঘরের ভাঙা অংশ ও পুরানো ফার্নিচার বিক্রি থেকে বছরে পাঁচ লাখ নয় হাজার ৩৩১ টাকা আয় দেখিয়েছেন তিনি।

আওয়ামী লীগের প্রার্থীর যত সম্পদ: মোছলেম উদ্দিনের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে এক কোটি ৭১ লাখ ৬৫ হাজার ৫৮০ টাকার। তার মধ্যে নগদ ১৮ লাখ, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা ১৬ লাখ, এক কোটি ৩৩ লাখের দুটি গাড়ি, পাঁচ ভরি স্বর্ণ (মূল্য ধরেছেন ১৫ হাজার), ১৫ হাজার টাকার আসবাব, অন্যান্য ব্যবসার মূলধন আট লাখ ৪৯ হাজার ৫৮০ টাকা। এছাড়া তার স্ত্রীর নামে ৮০ লাখ ২৪ হাজার ৩০০ টাকা মূল্যের অস্থাবর সম্পদ রয়েছে।

স্থাবর সম্পদের মধ্যে মোছলেম উদ্দিনের রয়েছে ১১ লাখ টাকা মূল্যের দুই একর কৃষিজমি, নয় লাখ ৩০ হাজার ৯৫২ টাকা মূল্যের দুই একর অকৃষি জমি। স্ত্রীর নামে স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে চার লাখ ৭৮ হাজার টাকা মূল্যের এক একর অকৃষি জমি ও ছয়তলাবিশিষ্ট একটি আবাসিক দালান।

এছাড়া যৌথ মালিকানায় কৃষি, অকৃষি, আবাসিক দালান ও পুকুর রয়েছে মোছলেম উদ্দিনের।

বিএনপির প্রার্থীর যত সম্পদ: আবু সুফিয়ানের অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নগদ ৫০ লাখ ৯৬ হাজার ৮৩৩ টাকা, পাঁচ লাখ টাকার শেয়ার, ১৫ লাখ ২১ হাজার ৫৯৬ টাকা মূল্যের একটি কার ও একটি পিকআপ, ২০ তোলা স্বর্ণ (দেখানো মূল্য উলেস্নখ ৫০ হাজার), এক লাখ ৬০ হাজার টাকা মূল্যের আসবাবপত্র।

তার স্ত্রীর কাছে অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে নগদ ৩৩ লাখ ৯০ হাজার ৫৯৭ টাকা, এক লাখ ৪০ হাজার টাকা মূল্যের যানবাহন, এক লাখ ৩০ হাজার টাকা মূল্যের অলংকার, এক লাখ টাকা মূল্যের ইলেকট্রনিক সামগ্রী, ৬০ হাজার টাকা মূল্যের আসবাবপত্র।

স্থাবর সম্পদের মধ্যে আবু সুফিয়ানের ৩৩ লাখ ৭২ হাজার টাকা মূল্যের অকৃষি জমি, ৫২ লাখ ৮৫ হাজার ২০০ টাকা মূল্যের দালান, ৬৯ হাজার ৬৭ টাকা মূল্যের মাছের খামার ও ডেভেলপারের সঙ্গে চুক্তির মাধ্যমে নির্মাণাধীন ভবন রয়েছে। তার স্ত্রীর নামে স্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে আট লাখ ৬৩ হাজার টাকা মূল্যের অকৃষি জমি ও ১৬ লাখ ৩০ হাজার টাকা মূল্যের দালান।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে