logo
শনিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

সংবাদ সংক্ষেপ

সমুদ্রসৈকতে

বরফের ডিম!

যাযাদি ডেস্ক

ফিনল্যান্ডের সমুদ্রসৈকতে বিপুল সংখ্যক বরফের ডিম দেখা গেছে। রোববার স্থানীয় বাসিন্দা রিস্তো মাত্তিলা এই ডিমের ছবি তুলেছেন।

দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, গত রোববার হাইলোতো দ্বীপের মারজানিয়েমি সৈকতে রিস্তো ও তার স্ত্রী হাঁটছিলেন। এ সময় সৈকতের ৩০ মিটার এলাকাজুড়ে তারা ডিম্বাকৃতির বরফ

দেখতে পান।

রিস্তো বলেন, 'সবচেয়ে বড় ডিমগুলো ছিল ফুটবলের সমান। এটা ছিল অসাধারণ দৃশ্য। এ ধরনের দৃশ্য আমি কখনো দেখিনি।' ফিনল্যান্ডের আবহাওয়া দপ্তরের বরফ বিশেষজ্ঞ জৌনি ভাইনিও জানান, এ ধরনের ঘটনা সচরাচর ঘটে না। তবে উপযুক্ত আবহাওয়ায় বছরে একবার ঘটতে পারে। তিনি বলেন, 'আপনার বাতাসের সঠিক তাপমাত্রা (শূন্যের সামান্য নিচে), পানির সঠিক তাপমাত্রা (বরফ হওয়ার কাছাকাছি), সরু ও মসৃণ ঢালু বালুকাময় সৈকত, শান্ত ঢেউ প্রয়োজন।'

একটি কাঁকড়ার

মূল্য ৩৯ লাখ!

যাযাদি ডেস্ক

জাপানে সম্ভবত বিশ্বের সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হলো একটি সামুদ্রিক কাঁকড়া। বৃহস্পতিবার স্থানীয় কর্মকর্তারা সামুদ্রিক তুষার কাঁকড়াটি ৩৮ লাখ ৯৯ হাজার ১৮৬ টাকায় (৪৬ হাজার মার্কিন ডলার) বিক্রি হওয়ায় বিশ্বরেকর্ডের দাবি করেছেন।

দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের তোত্তোরি অঞ্চলে চলতি সপ্তাহ থেকে শীতকালীন সুস্বাদু এই খাবার পাওয়া যাচ্ছে। জাপানি ক্রেতারা বার্ষিক নিলামের শুরুর দিকে সর্বোচ্চ দাম হাঁকিয়ে কাঁকড়া, টুনা মাছ ও তরমুজ কেনেন। শীতকালীন মৌসুমে সামুদ্রিক সুস্বাদু খাবারের এই নিলামে দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমের সরব উপস্থিতিও থাকে। জাপানের ইতিহাসে সর্বোচ্চ দামে বিক্রীত এই কাঁকড়ার ওজন এক কেজি ২০০ গ্রাম। চারদিকে এর ব্যাস প্রায় ১৪ দশমিক ৬ সেন্টিমিটার। স্থানীয় সরকার বিভাগের কর্মকর্তা শোতা ইনামোনো বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, এই কাঁকড়াটি এত উচ্চমূল্যে বিক্রি হয়েছে যে আমি অবাক হয়েছি।

যুবলীগ নেতাসহ

৪ জন আটক

যাযাদি ডেস্ক

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার গুঠিয়া ইউনিয়নের রৈভদ্রাদী গ্রামের একটি বাড়িতে অসামাজিক কার্যকলাপ ও মাদক সেবনকালে আটক যুবলীগ নেতা ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতিসহ ৪ জনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

স্থানীয়রা জানান, গুঠিয়া ইউনিয়নের রৈভদ্রাদী গ্রামের নান্না মুন্সির পরিত্যক্ত ঘরে প্রায় দিন রাতেই মাদক সেবন ও অসামাজিক কার্যকলাপ চলত। সেখানে যাওয়া-আসা করত উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খান, দাসেরহাট জেডএ খান মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর হাওলাদার, স্থানীয় যুবলীগ নেতা মো. সাইফুল ইসলাম ও ডহরপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের মেয়ে স্বামী পরিত্যক্তা মাইশা আক্তার মুন্নীসহ প্রভাবশালীরা। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ ছিল দীর্ঘদিনের। তবে তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছিল না। বৃহস্পতিবার রাতে স্থানীয় কয়েকজন ফোন দিয়ে বিষয়টি থানায় জানায়।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে