logo
সোমবার ২৪ জুন, ২০১৯, ১০ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ২৫ মে ২০১৯, ০০:০০  

ট্রেনে ঈদটিকিট: ভোগান্তির শেষ নেই

ট্রেনে ঈদটিকিট: ভোগান্তির শেষ নেই
শুক্রবার কমলাপুর রেলস্টেশনে কাঙ্ক্ষিত টিকিট পেয়ে উচ্ছ্বসিত যাত্রী -ফোকাস বাংলা

রোজার ঈদে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির তৃতীয় দিনেও ভোগান্তির অভিযোগ করেছেন টিকিটপ্রত্যাশীরা। শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনসহ পাঁচটি স্থানে টিকিট বিক্রি করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। আগাম টিকিট বিক্রির তৃতীয় দিন বিক্রি হয় ২ জুন ট্রেন যাত্রার টিকিট। এদিন ৩৩টি আন্তঃনগর এবং চারটি বিশেষ ট্রেনসহ ৩৭টি ট্রেনের ২৮ হাজার ২২৪টি টিকিট বিক্রি হয়। যাত্রীদের ভোগান্তি এড়াতে এবার?ই প্রথম কমলাপুরের বাইরেও টিকিট বিক্রির ব্যবস্থা রাখে রেলওয়ে। সকালে কমলাপুর রেল স্টেশনে গিয়ে টিকিটপ্রত্যাশীদের ব্যাপক ভিড় দেখা গেছে। কমলাপুর স্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু হয়ে যাতায়াতকারী ১৬টি ট্রেনের ১৪ হাজার ৯৫টি টিকিট বিক্রি হয়। এরমধ্যে কাউন্টার থেকে পাঁচ হাজার ৯৪৪টি এবং অনলাইন ও মোবাইল অ্যাপসে আট হাজার ১৫১টি টিকিট। বিমান বন্দর স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী ৭টি আন্তঃনগর ট্রেনের চার হাজার ৮৭৯টি টিকিট বিক্রি হয়। এরমধ্যে দুই হাজার ৫৪৮টি অনলাইনে এবং দুই হাজার ৩৩১টি টিকিট কাউন্টার থেকে বিক্রি হয়। তেজগাঁও স্টেশন থেকে জামালপুরগামী পাঁচটি ট্রেনের তিন হাজার ৪৪৪টি টিকিট বিক্রি হয়। এরমধ্যে ৬৪৪টি অনলাইনে এবং ৬১৪টি কাউন্টারে বিক্রি হয়। বনানী রেলওয়ে স্টেশন থেকে মোহনগঞ্জ রুটের দুটি ট্রেনের এক হাজার ২৫৮টি টিকিট বিক্রি হচ্ছে। ৬৪৪টি টিকিট অনলাইনে বাকি ৬১৪টি টিকিট কাউন্টারে দেয়া হয়। ফুলবাড়িয়া পুরাতন রেলভবন থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জ রুটের সাতটি আন্তঃনগর ট্রেনের চার হাজার ৫৪৮টি টিকিট বিক্রি হয়। এরমধ্যে দুই হাজার ২৫১টি টিকিট অনলাইনে এবং দুই হাজার ২৯৭টি টিকিট কাউন্টারের। প্রথম ও দ্বিতীয় দিনের মতো তৃতীয় দিনেও অনলাইনে এবং অ্যাপ থেকে টিকিট কিনতে পারেননি বলে অভিযোগ করেছেন টিকিটপ্রত্যাশীরা। শুক্রবার ভোরে সেহরির পর কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিটের জন্য লাইনে দাঁড়ানো রাশেদুল আলম বলেন, বৃহস্পতিবার অনলাইন বা মোবাইল অ্যাপ থেকে চেষ্টা করেও টিকিট কিনতে পারেননি তিনি। 'এজন্য শুক্রবার ভোরে এসে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। এখানে আসার পর?ও মোবাইল ফোন থেকে চেষ্টা করেই যাচ্ছি। কমপক্ষে ৪০ বার চেষ্টা করেও অ্যাপসে ঢুকতে পারিনি। তো ৫০ ভাগ টিকিট অনলাইনে দিয়ে কী লাভ হলো?' বেসরকারি চাকরিজীবী মো. বাপ্পী ইসলাম সকাল ৬টার দিকে কমলাপুর আসেন। বেলা সাড়ে ১২টায়ও লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি। তিনিও মোবাইল অ্যাপে টিকিট পাননি। 'অ্যাপস এ টিকিট নিয়ে কোনো নিশ্চয়তা নেই। কয়েকবার চেষ্টা করে ও পারি নাই। এখন এখানে পাই কি না দেখি।' রাসেল আহমেদ একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সাংবাদিক বলেন, 'আসছি ভোরে, বড় লাইন ছিল। আমার সিরিয়াল ছিল ২৮৪। দুপুর ১টায় শোভন চেয়ারের টিকিট পেলাম। খুবই ভালো লাগছে।' আবুজর গিফারী নামে একজন অভিযোগ করেন, টিকিট ধীরগতিতে দেয়া হচ্ছে। এসি বা কেবিনের টিকিট নিতে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখছে। এজন্য সময় বেশি লাগছে। 'খুবই ধীরে টিকিট বিক্রি করছে। আমি এখানে এসেছি ভোরে। ৯টা থেকে টিকিট দেয়া শুরু হয়েছে। এখন বাজে পৌনে ১টা। টিকিট দেয়া হয়েছে মাত্র ৯০ জনকে।' এ বিষয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলাম বলেন, অনলাইনের সমস্যা ধীরে ধীরে কেটে যাচ্ছে। 'অনলাইনে সমস্যা কেটে যাবে। আমাদের বিশেষজ্ঞ দল সমস্যা সমাধানে কাজ করছে। এখন লোকজন টিকিট পাচ্ছে। চাহিদা অনুযায়ী কমলাপুরে নারীদের আরেকটি কাউন্টার খুলে দেয়া হবে বলে জানান আমিনুল। বিমান বন্দর রেল স্টেশনেও অনলাইন ও অ্যাপের মাধ্যমে টিকিট নিশ্চিত করতে না পেরে যাত্রীরা ভিড় করেছেন। টিকিটপ্রত্যাশী একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আহমেদ ফেরদৌস বলেন, 'অ্যাপসে টিকিট দেয়া হবে বলে সেখানে বার বার ট্রাই করেছি, এতে আমার সময় নষ্ট হয়েছে। বাধ্য হয়ে সেই লম্বা লাইনেই দাঁড়াতে হয়েছে। তারপরও টিকিট পাব কি না জানি না।' একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মী সালাহ উদ্দিনকে চট্টগ্রামগামী সোনার বাংলা এক্সপ্রেসের টিকিটের জন্য লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে মোবাইল থেকে অনলাইনে টিকিটের জন্য চেষ্টা করতে দেখা যায়। তিনি বলেন, 'ভাই, রেলের ওয়েবসাইটে গিয়ে বারবার চেষ্টা করছি, আইডি নাম্বার দিয়ে সিকিউরিটি কোড দেয়ার পর 'কমফার্ম ফর রিসাবমিশন' লেখা এসে থেমে যাচ্ছে। গতরাত থেকে এভাবেই চেষ্টা করছি, কিন্তু টিকিট কনফার্ম করতে না পেরে ভোর থেকে লাইনে দাঁড়িয়েছি।' সালাহ উদ্দিনের মতো একই ধরনের অভিযোগ একটি বায়িং হাউসের কর্মী আসিফ মাহমুদের। তিনি বলেন, 'আমি অনলাইনে টিকিট পাইনি, যে কারণে সেই আগের ভোগান্তি নিয়েই লম্বা লাইনে দাঁড়িয়েছি।' পদ্মা লাইফ ইন্সু্যরেন্সের এক কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন সেহরির খেয়ে টিকিটের জন্য বিমানবন্দর স্টেশনের লাইনে এসে দাঁড়ান। সকাল সাড়ে ১০ টায় হাতে টিকিট পেয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, 'এখানে যারা টিকিট দিচ্ছেন তারা ইচ্ছে করেই দেরি করে টিকিট ছাড়ছেন। যে কারণে একটি টিকিট দিতে ৫-৬ মিনিটের বেশি সময় লাগছে।' তবে এই স্টেশনের স্টেশন মাস্টার মাহমুদুল হাসানের দাবি, এই দেরি ইচ্ছে করে করা হচ্ছে না। তিনি বলেন, 'একজন টিকিটপ্রত্যাশীর নাম, মোবাইল নাম্বার, জাতীয় পরিচয়পত্র, গন্তব্যসহ বিস্তারিত তথ্য সার্ভারে দিয়ে একটা নিবন্ধন করার পর টিকিট রেডি হয়। তাই এই সময়টুকু লাগতেই পারে।' বিমান বন্দর স্টেশনের চারটি কাউন্টার থেকে চট্টগ্রামগামী সুবর্ণ এক্সপ্রেস, মহানগর এক্সপ্রেস, মহানগর প্রভাতী, তুর্না, চট্টলা ও সোনার বাংলা এক্সপ্রেসের এবং নোয়াখালীগামী উপকূল এক্সপ্রেসের টিকিট দেয়া হচ্ছে। এসব কাউন্টারের মধ্যে নারীদের জন্য একটি আলাদা কাউন্টার রেখেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। বনানী রেলওয়ে স্টেশন থেকে নেত্রকোনোগামী মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস ও হাওর এক্সপ্রেসের আগাম টিকিট দেয়া হচ্ছে। সকাল থেকেই এ স্টেশনের দুইটি কাউন্টার থেকে টিকিট বিক্রি করা হয়। বেলা ১১টার মধ্যে লাইনে থাকা সবাই টিকিট পেয়েছে বলে জানিয়েছেন এই স্টেশনের স্টেশন মাস্টার মো. ফজলুল হক। তিনি বলেন, 'এখান থেকে আমরা কাউন্টারের ৬১৯টি টিকিট বিক্রি করছি। সকাল ৯টা থেকে ২ ঘণ্টা পর্যন্ত যাত্রীরা লাইনে থেকে টিকিট নিয়েছে। আর কিছু টিকিট আছে, যে আগে আসবেন, আগে পাবেন।' বনানী রেলওয়ে স্টেশন থেকে দিনে মোহনগঞ্জ রুটের দুটি ট্রেনের এক হাজার ২৫৮টি টিকিট বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে ৬৩৯টি টিকিট অনলাইনে বিক্রি হওয়ার কথা রয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে