logo
সোমবার, ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ০২ জুলাই ২০২০, ০০:০০  

করোনা উপসর্গে আরও ১৫মৃত্যু

জ্বর-সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্টের মতো উপসর্গ নিয়ে কুমিলস্নায় ৬, বরিশালে ৩, রাজশাহীতে ২, চট্টগ্রাম রাঙামাটি, যশোর ও লক্ষ্ণীপুরে একজন করে মারা গেছেন

করোনা উপসর্গে আরও ১৫মৃত্যু

জ্বর-সর্দি কাশি ও শ্বাসকষ্টের মতো কোভিড-১৯ এর উপসর্গ নিয়ে দেশের সাত জেলায় আরও ১৫ জনের মৃতু্য হয়েছে। মঙ্গলবার বিকাল ও বুধবার কুমিলস্নায় ৬, বরিশালে ৩, রাজশাহীতে ২, চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, যশোর ও লক্ষ্ণীপুরে একজন করে মারা গেছেন। আমাদের আঞ্চলিক অফিস ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর : কুমিলস্না : করোনায় সংক্রমিতদের চিকিৎসার জন্য স্থাপিত কুমিলস্না কোভিড-১৯ হাসপাতালে বুধবার ভোর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় উপসর্গ নিয়ে আরও ছয়জন মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন কুমিলস্না সিটি করপোরেশনের দুজন, চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার দুজন এবং চৌদ্দগ্রাম ও বুড়িচং উপজেলার একজন করে। তারা সবাই পুরুষ। তাদের বয়স ৫০ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে। হাসপাতালের তথ্য শাখার সহকারী সার্জন মুক্তা রানী ভূঁইয়া বুধবার সকাল সাড়ে আটটায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাত ১২টা ১০ মিনিটে মারা যান কুমিলস্না সিটি করপোরেশনের জাঙ্গালিয়া এলাকার ৬০ বছরের একজন এবং একই এলাকার ৫০ বছরের একজন রাত নয়টায় মারা যান। রাত আটটা ২০ মিনিটে মারা যান চাঁদপুরের শাহরাস্তি এলাকার ৭৫ বছরের এক বৃদ্ধ। হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) মারা গেছেন তিনজন। এর মধ্যে কুমিলস্নার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ৮০ বছরের এক বৃদ্ধ রাত ১১টায়, চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার ৬৫ বছরের একজন গতকাল সকাল ১০টায় এবং কুমিলস্নার বুড়িচং উপজেলার রামপুর এলাকার ৬৫ বছরের একজন সকাল সাড়ে আটটায় মারা গেছেন। বরিশাল : বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে কোভিড-১৯-এর উপসর্গ নিয়ে আরও তিনজনের মৃতু্য হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে রাতের মধ্যে এই তিনজন মারা যান। হাসপাতালের পরিচালক মো. বাকির হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে গত রোববার সকাল থেকে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার মধ্যে এই হাসপাতালে ছয়জন মারা গিয়েছিলেন। হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত ২৮ জুন মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার এক ব্যক্তি (৪৫) কোভিড-১৯-এর উপসর্গ নিয়ে এই হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি হন। মঙ্গলবার রাত আটটার দিকে তিনি মারা যান। মঙ্গলবার বিকাল পৌনে পাঁচটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান বরগুনার বামনা উপজেলার এক ব্যক্তি (৬০)। তিনি উপসর্গ নিয়ে ওইদিন বেলা ১১টার দিকে হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছিলেন। এর আগে বেলা দুইটার দিকে মারা যান পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার এক ব্যক্তি (৬০)। জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে ওই ব্যক্তিকে সোমবার বেলা একটার দিকে তার স্বজনরা হাসপাতালে ভর্তি করান। রাজশাহী : রাজশাহীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুইজনের মৃতু্য হয়েছে। বুধবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে তাদের মৃতু্য হয়েছে। হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস এ তথ্য জানান। তিনি জানান, করোনার উপসর্গ নিয়ে ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাব সহকারী মাসুদ রানার (৪৫) মৃতু্য হয়। তিনি রাজশাহী মহানগরীর বালিয়াপুকুর এলাকার গাজিউর রহমানের ছেলে। মাসুদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ল্যাব সহকারী ছিলেন। তিনি বলেন, মাসুদ রানা করোনার উপসর্গ নিয়ে মঙ্গলবার হাসপাতালে ভর্তি হন। কিন্তু নমুনা পরীক্ষার আগেই তিনি মারা যান। মৃতু্যর পর তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এছাড়াও মাসুদ রানার লাশ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফনের জন্য কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, দুপুর পৌনে ১টার দিকে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় ৩০ নং ওয়ার্ডে মীর শওকত আলী মারা যান। তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট ছিল। সকাল পৌনে ১০টার দিকে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তার বাড়ি নগরের হোসনীগঞ্জ এলাকায়। চট্টগ্রাম : করোনা উপসর্গ নিয়ে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ট্রাফিক বিভাগের এক সদস্য। বুধবার দুপুরে মারা যান তিনি। মারা যাওয়ার পর তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মারা যাওয়া পুলিশ সদস্যের নাম আ ফ ম জাহেদ (৪১)। তিনি সিএমপি ট্রাফিক-উত্তর বিভাগে কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন। আ ফ ম জাহেদ সীতাকুন্ড উপজেলার বাড়বকুন্ড নড়ালিয়া এলাকার মো. জয়নাল আবেদীনের ছেলে। লংগদু (রাঙামাটি) : রাঙামাটির লংগদু উপজেলার ভাইবোনছড়া গ্রামে করোনা উপসর্গ নিয়ে অনিল দাশ (৬৫) নামের এক বৃদ্ধার মৃতু্য হয়েছে। মৃত ব্যক্তি ভাইবোনছড়া এলাকার রাজনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সজল দাশের পিতা। রোববার তিনি বেশি অসুস্থ হলে তাকে রাবেতা হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী বাড়িতে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। মঙ্গলবার রাত সাতটায় তিনি মৃতু্যবরণ করেন। স্থানীয়রা জানায় (রাত ১১টা) করোনা সন্দেহে মৃত ব্যক্তির সৎকারে এলাকার সনাতন ধর্মের কেউ এগিয়ে আসেনি। রামগতি (লক্ষ্ণীপুর) : লক্ষ্ণীপুরের রামগতিতে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে প্রবীর কান্তি নাগ (৫৮) নামের এক পুলিশ সদস্যের মৃতু্য হয়েছে। বুধবার সকালে উপজেলার বড়খেরী নৌ-পুলিশ ফাঁড়িতে তার মৃতু্য হয়। তার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার শ্যামো গ্রামে। তিনি বড়খেরী নৌ-পুলিশ ফাঁড়িতে কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন। অভয়নগর (যশোর) : যশোরের অভয়নগরে শ্বাসকষ্টে শান্ত অধিকারী (২৩) নামে এক শ্রমিক লীগ নেতার ছেলে মৃতু্যবরণ করেছেন। বুধবার রাত আনুমানিক ৩টার সময় খুলনা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মৃত শান্ত অধিকারী উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নওয়াপাড়া পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র রবিন অধিকারী ব্যাচার বড় ছেলে। বুধবার দুপুরে নওয়াপাড়া মহাশ্মশানে তার সৎকার সম্পন্ন করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে