logo
মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ৩০ মে ২০২০, ০০:০০  

পুলিশ সদস্যদের সুস্থতা বাড়ছে, কমছে সংক্রমণ

শুক্রবার পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের এক হাজার ৫৬৩ জন সদস্য করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়েছেন

পুলিশ সদস্যদের সুস্থতা বাড়ছে, কমছে সংক্রমণ
বাংলাদেশ পুলিশের করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যের প্রতি তিনজনে একজন সদস্য ইতোমধ্যেই করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়েছেন। শুক্রবার পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের এক হাজার ৫৬৩ জন সদস্য করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়েছেন। সুস্থ হওয়া বেশির ভাগ পুলিশ সদস্যই পুনরায় দেশমাতৃকার সেবায় নিয়োজিত হয়েছেন।

শুক্রবার পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, জনগণের সেবা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করতে গিয়ে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ৪ হাজার ৫৪৪ জন গর্বিত সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। পুলিশ সদস্যদের সুস্থতার হার ৩৪ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ, বিপিএম (বার)-এর ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও নির্দেশনায় করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের সুচিকিৎসা ও সর্বোত্তম সেবা নিশ্চিত করতে নেওয়া হয়েছে নানামুখী পদক্ষেপ। এরই ফলশ্রম্নতিতে করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের সুস্থতার হার একদিকে যেমন দ্রম্নততার সঙ্গে বাড়ছে, অন্যদিকে নতুন করে সংক্রমণের সংখ্যা কমছে বলেও জানান তিনি।

পুলিশ সদস্যদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি কমাতে আইজিপির নির্দেশে বিভিন্ন ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। একই সঙ্গে আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের জন্য সর্বোত্তম সেবা ও শুশ্রূষা নিশ্চিত করতে বেসরকারি হাসপাতাল ভাড়া করাসহ সব পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ উন্নত চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সংযোজন করা হয়েছে।

মহামারী করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে একক পেশা হিসেবে যেমন সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত কয়েক ধাপে সুস্থ হলেন বার শতাধিক করোনায় আক্রান্ত পুলিশ সদস্য। বিষয়টি পুলিশের সাধারন সদস্য, তাঁদের পরিবার, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, আক্রান্ত রোগীদের তদারককারী কর্মকর্তা ও পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জন্য স্বস্থির খবর হয়ে এসেছে।

রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোঃ সাইফুল ইসলাম সানতু জানান, সরকারের আইইডিসিআর এর চিকিৎসা প্রটোকল অনুযায়ী এ ২৪৩ পুলিশ সদস্যদের পরপর দুবার কোভিড-১৯ টেস্ট করা হয়। টেস্টে দুবারই কোভিড-১৯ নেগেটিভ হওয়ায় চিকিৎসকরা তাদেরকে করোনামুক্ত ও সুস্থ ঘোষণা করে হাসপাতাল ত্যাগের ছাড়পত্র দেন। হাসপাতাল ত্যাগ করার সময় বরাবরের মতোই করোনা প্রতিরোধের সম্মুখযোদ্ধাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয় বলেও জানান তিনি।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে