logo
রোববার ২৫ আগস্ট, ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ১৮ জুলাই ২০১৯, ০০:০০  

ফেঁসে গেলেন পিডিবির সেই ২ সিবিএ নেতা

ফেঁসে গেলেন পিডিবির সেই ২ সিবিএ নেতা
মো. জহিরুল ইসলাম চৌধুরী ও মো. আলাউদ্দিন মিয়া
শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তারা প্রভাব খাটিয়ে প্রতিষ্ঠানের দুটি গাড়ি প্রায় ১০ বছর ধরে ব্যবহার করেছেন। এর চালকের বেতন, তেল ও রক্ষণাবেক্ষণ খরচ বহন করেছে তাদের প্রতিষ্ঠান। এর মাধ্যমে সরকারের কোটি টাকার বেশি ক্ষতি সাধনপূর্বক আত্মসাৎ করেছেন। এ অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বাংলাদেশ বিদু্যৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) সিবিএ সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন মিয়ার বিরুদ্ধে এই মামলা হয়েছে।

দুদকের সহকারী পরিচালক খলিলুর রহমান সিকদার বুধবার সংস্থাটির ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ মামলাটি করেন। সংস্থার উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দুদক সূত্র বলছে, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী পিডিবির সহকারী হিসাবরক্ষক (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) এবং মো. আলাউদ্দিন মিয়া (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) সংস্থাটির সাবেক স্টেনোটাইপিস্ট কাম কম্পিউটার অপারেটর।

এজাহারে বলা হয়েছে, সিলেট মেট্রো-ঘ-০২-০০৩৩ নম্বরের সরকারি পাজেরো গাড়িটি ব্যবহার করে আসছিলেন সিবিএ সভাপতি জহিরুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি ২০১৮ সালের ৬ জুন অবসরে গেছেন। সে সময় তিনি পিডিবির অডিট পরিদপ্তরের সহকারী হিসাবরক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। শ্রম বিধিমালা ২০১৫-এর ২০২ ধারা অনুসারে শ্রমিক সংগঠনের কোনো নেতাকর্মী সংশ্লিষ্ট সংস্থার কাছ থেকে যানবাহন সুবিধা গ্রহণ করতে পারবে না। তারপরও প্রভাব খাটিয়ে ১০ বছর ধরে গাড়িটি তিনি ব্যবহার করে আসছিলেন। এর চালকের বেতন, তেল ও রক্ষণাবেক্ষণ খরচ বহন করছে পিডিবি।

ঢাকা মেট্রো ঘ-১১-২৮২৭ নম্বরের পাজেরো গাড়িটি ব্যবহারের এখতিয়ার যুগ্ম সচিব মর্যাদার কর্মকর্তাদের। অথচ ১০ বছর ধরে এটি ব্যবহার করছিলেন তৃতীয় শ্রেণির একজন কর্মচারী মো. আলাউদ্দিন। সার্বক্ষণিক ব্যবহারের জন্য জ্বালানি, রক্ষণাবেক্ষণ, চালকের বেতনসহ সব খরচ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানই। এক বছর আগে অবসরে যাওয়ার পরও গাড়িটি ছিল তার দখলে। এ বছরের ১১ ফেব্রম্নয়ারি তার দখল থেকে গাড়িটি উদ্ধার করে দুদক। তার পরদিন জহিরুল ইসলাম চৌধুরীর দখলে থাকা অন্য গাড়িটিও উদ্ধার করা হয়।

গাড়ি দুটি উদ্ধারের পর দুদক থেকে জানানো হয়েছিল, তাদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে যাবে সংস্থাটি। তারই পরিপ্রেক্ষিতে অনুসন্ধানে নামে সংস্থাটি। অনুসন্ধান করেন দুদকের সহকারী পরিচালক খলিলুর রহমান সিকদার। তার অনুসন্ধান প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে মামলার অনুমোদন দেয় কমিশন।

এজাহারে আরও বলা হয়, গাড়ি দুটি বিদু্যৎ উন্নয়ন বোর্ডের কাজের স্বার্থে জরুরি প্রয়োজনে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জন্য 'স্ট্যান্ডবাই' (ভিআইপি) হিসেবে রাখার দপ্তরাদেশ দেয়া হয়। বোর্ডের কাজের স্বার্থে জরুরি প্রয়োজনে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জন্য 'স্ট্যান্ডবাই' (ভিআইপি) হিসেবে রাখার দপ্তরাদেশ থাকলেও নিজেদের ভিআইপি দাবি করে জহিরুল ইসলাম চৌধুরী এবং মো. আলাউদ্দিন ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজদের দখলে রাখেন। তারা গাড়ি দুটি ২৪ ঘণ্টা ব্যবহার করেন। ২০১০ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের ফেব্রম্নয়ারি পর্যন্ত গাড়ি ব্যবহার করে জ্বালানি, মেরামত ও সংরক্ষণ বাবদ সরকারি এক কোটি ১৫ লাখ ৬৩ হাজার ২৭ টাকা ক্ষতিসাধনপূর্বক আত্মসাৎ করার বিষয়টি অনুসন্ধানে প্রমাণ হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিদু্যৎ উন্নয়ন বোর্ডের গাড়ি ব্যবহারের নীতিমালায় প্রাধিকারপ্রাপ্ত ব্যক্তি ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তিকে গাড়ি প্রদান করা যাবে না মর্মে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে একটি সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তাদের নামে পাজেরো গাড়ি দুটি সরাসরি বরাদ্দ সংক্রান্ত কোনো পত্র পাওয়া যায়নি। শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তারা প্রভাব খাটিয়ে গাড়ি দুটি ব্যবহার শুরু করেন এবং প্রায় ১০ বছর পর্যন্ত গাড়ি দুটি ব্যবহার করেন। ২০১৭ সালের ৩১ আগস্ট আলাউদ্দিন মিয়া এবং ২০১৮ সালের ৬ জুন জহিরুল ইসলাম চৌধুরী চাকরি থেকে অবসরে গেলও গাড়ি দুটি পরিবহন পুলে জমা দেননি।

সিবিএর এই দুই নেতার সম্পদের অনুসন্ধানও করছে দুদক। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, অনেক দিন ধরে সিবিএর নেতৃত্বে থেকে বোর্ড প্রশাসনের ওপর খবরদারি ও অনিয়মের মাধ্যমে বিপুল সম্পদ অর্জন করেছেন। শিগগিরই এ সংক্রান্ত অনুসন্ধান প্রতিবেদন জমা পড়বে বলে জানিয়েছে দুদক।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে