logo
বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬

  যাযাদি রিপোর্ট   ১৭ জুন ২০১৯, ০০:০০  

প্রাণের পণ্যে বিস্তর ভেজাল মানুষ কোথায় যাবে

প্রশ্ন হাইকোর্টের

প্রাণের পণ্যে বিস্তর ভেজাল মানুষ কোথায় যাবে
প্রাণের লাচ্ছা সেমাই ও গুঁড়া মশলার দুটি মোড়ক
প্রাণ লাচ্ছা সেমাই, প্রাণ হলুদের গুঁড়াসহ ১৬টির লাইসেন্স বাতিলকৃত পণ্য বাজার থেকে দ্রম্নত সরাতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

রোববার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে বিএসটিআইয়ের পরীক্ষায় মানহীন ৫২টি খাদ্যপণ্য অবিলম্বে বাজার থেকে সরাতে ও জব্দে হাইকোর্টের দেয়া নির্দেশনা প্রতিপালন না করার বিষয়ে শুনানিতে এ নির্দেশ দেয়া হয়। এ সময় আদালত বলেন, মানুষ চোখ বন্ধ করে প্রাণের পণ্য কেনে। তাদের পণ্যে বিস্তর ভেজাল, মানুষ কোথায় যাবে?

পরে হাইকোর্ট ঢাকাসহ সারাদেশে সব পণ্যের মান দৈবচয়ন ভিত্তিতে পরীক্ষা এবং পুনঃপরীক্ষা করতে বিএসটিআইকে নির্দেশ দেয়। এছাড়া ভোক্তাদের জরুরি সেবা দিতে আগামী দুই মাসের মধ্যে একটি হটলাইন চালু করতে ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

আদালত বলেছেন, ওই হটলাইন চালুর আগ পর্যন্ত ভোক্তা অধিকার সংক্ষরণ অধিদপ্তরের একটি নম্বর (০১৭৭৭৭৫৩৬৬৮), প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের ৩৩৩ এবং জাতীয় হটলাইন ৯৯৯ এর মাধ্যমে ভোক্তাদের ছুটির দিনসহ ২৪ ঘণ্টা জরুরি সেবা দিতে হবে।

বিচারক বলেন, 'ওই দুটি নম্বর যেন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের নম্বরটিও ছুটির দিনসহ ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখতে হবে। বিষয়টি ভোক্তাদের জানানোর জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে।

বিএসটিআইর মানের পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ বিভিন্ন কোম্পানির খাদ্যপণ্য বাজেয়াপ্ত বা তুলে নিয়ে ধ্বংস করার নির্দেশনা বাস্তবায়ন না করায় নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহফুজুল হককে তলব করেছিল হাইকোর্ট।

কেন তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে গত ২৩ মে রুলও জারি করা হয়েছিল।

সে অনুযায়ী মাহফুজুল হক রোববার আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে নিশঃর্ত ক্ষমা চান। আদালত তাকে শর্তসাক্ষেপে আদালত অবমাননার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়ে সেই রুলের নিষ্পত্তি করে দেয়।

শর্তগুলো হলো- মাহফুজুল হক আর কখনো আদালতের আদেশ-নির্দেশ লঙ্ঘন করবেন না। বিএসটিআইয়ের পরীক্ষায় যে ৫২টি নিম্নমানের পণ্য ধরা পড়েছে শুধু সেই ৫২টি পণ্য নয়, খাদ্যে ভেজালের বিরুদ্ধে অব্যাহতভাবে অভিযান পরিচালনা অব্যাহত রাখবেন। যেহেতু নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ জনবল সঙ্কটের কথা বলেছে, তাই সরকারের অন্যান্য 'এজেন্সির' সহযোগিতা নিয়ে ভেজালবিরোধী অভিযান তিনি অব্যাহত রাখবেন।

বিএসটিআইয়ের পক্ষে ছিলেন এদিন আদালতে ছিলেন আইনজীবী সরকার এম আর হাসান। নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের পক্ষে ছিলেন কামাল উল আলম, এম আমিনুদ্দিন এবং মোহাম্মদ ফরিদুল আলম। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পক্ষে ছিলেন কামরুজ্জামান কচি।

শিল্প মন্ত্রণালয় গত ২ মে এক সংবাদ সম্মেলনে জানায়, বিএসটিআই রোজার আগে বাজার থেকে নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করে ১৮টি কোম্পানির ৫২টি নিম্নমানের পণ্য চিহ্নিত করেছে।

এরপর এসব খাদ্যপণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহার, জব্দ ও মান উন্নীত না হওয়া পর্যন্ত উৎপাদন বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনশাস কনজু্যমার সোসাইটির (সিসিএস) পক্ষে এই রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শিহাব উদ্দিন খান।

ওই রিটের প্রাথমিক শুনানি করে গত ১২ মে বিএসটিআইর মানের পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ ১৮টি কোম্পানির ৫২টি পণ্য বিক্রি বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। সে সঙ্গে উৎপাদনকারীদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়া হয়।

এছাড়া বাজারে থাকা এসব নিম্নমানের পণ্য বাজার থেকে দ্রম্নত বাজেয়াপ্ত, অপসারণ করে ধ্বংস এবং মানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তার উৎপাদন ও বাজারে সরবরাহ বন্ধ রাখতেও নির্দেশ দেয়া হয়।

এসব নির্দেশ দ্রম্নত বাস্তবায়ন করে আগামী ১০ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয় নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে।

আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের আইনজীবী গত ২৩ মে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করেন। কিন্তু সেখানে আদালতের আদেশ বাস্তবায়নের অগ্রগতির তথ্য না থাকায় উষ্মা প্রকাশ করে হাইকোর্ট।

বিচারক বলেন, 'নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ আদালতের আদেশ অনুযায়ী দেশের কোথাও কোনো দোকান থেকে একটি প্যাকেটও সরায়নি। এ সংক্রান্ত একটি শব্দও তাদের প্রতিবেদনে নেই।'

এরপর নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহফুজুল হককে ১৬ জুন আদালতে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়। পাশাপাশি জারি করা হয় আদালত অবমাননার রুল, যার নিষ্পত্তি করা হলো রোববার।

এদিকে যে ৫২টি পণ্য প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছিল বিএসটিআই, কয়েক ধাপে পরবর্তী পরীক্ষার তার মধ্যে ২৬টিকে ওই তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়।

এছাড়া গত ১১ জুন দ্বিতীয় দফায় ২২টি পণ্যকে 'নিম্ন মানের' বলে ঘোষণা করে জাতীয় মান নির্ধারণকারী সংস্থা বিএসটিআই।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে