logo
রোববার ২৬ মে, ২০১৯, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০  

আজ আসছে মরদেহ

শেখ সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত, জামাতা আহত

শেখ সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত, জামাতা আহত
মা শেখ সোনিয়ার সঙ্গে পুত্র জায়ান -ফাইল ছবি

শ্রীলংকায় ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলায় নিহত হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুফাতো ভাই ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী (৮)। এ ঘটনায় আহত হন তার জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স। রোববার সকালে বিস্ফোরণের পর থেকেই দুই বাংলাদেশি নিখোঁজ বলে জানাচ্ছিল সংবাদ মাধ্যম ও শ্রীলংকার বাংলাদেশ দূতাবাস। পরে জানা যায়, নিখোঁজ দু'জন শেখ সেলিমের জামাতা ও নাতি। বরুনেই সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও তার বক্তব্যে বিষয়টি উলেস্নখ করেন। পরে শেখ সেলিমের পারিবারিক সূত্র রাতে সংবাদ মাধ্যমকে জায়ান নিহত হয়েছে বলে জানান। এর কিছুক্ষণ পর শেখ রেহানার মেয়ে ও ব্রিটিশ পার্লামেন্টের এমপি টিউলিপ সিদ্দিক এক টুইটে লেখেন, শ্রীলংকা হামলায় তিনি এক আত্মীয়কে হারিয়েছেন। পুরো ব্যাপারটিই বিধ্বংসী। আশা করেন, সবাই নিরাপদে থাকছে। শ্রীলংকার মানুষের জন্য সমবেদনা। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের এমপিদেরও শেখ সেলিমের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে শিশু জায়ানের মৃতু্যতে শোক প্রকাশ করে পোস্ট দিতে দেখা গেছে। প্রথমে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম দু'জন বাংলাদেশি নিখোঁজ জানালেও তাদের পরিচয় প্রকাশ করেননি। রাতে বরুনেই প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে বলেন, 'শেখ সেলিমের মেয়ে, জামাই ও দুই বাচ্চা নিয়ে শ্রীলংকায় ছিল। সেখানে মেয়ের জামাই প্রিন্স, ছেলে সাড়ে আট বছরের ওরাও গিয়েছিল। রেস্টুরেন্টে ছিল, সেখানে বোমা পড়েছে। জামাই আহত হয়ে হাসপাতালে, বাচ্চাটার এখনো কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে না যে সে কোথায় আছে। আপনারা একটু দোয়া করেন, যেন ওকে পাই।' শ্রীলংকায় অবস্থান করা সেলিমের মেয়ে সোনিয়া, জামাই প্রিন্স ও তাদের দুই সন্তান কলম্বোর পাঁচতারকা হোটেল সাংগ্রিলায় ছিলেন। হামলার দিন সকালে জামাতা প্রিন্স ছেলে জায়ানকে নিয়ে হোটেলের নিচতলার রেস্টুরেন্টে গিয়েছিলেন নাশতা করতে। অন্য সন্তানকে নিয়ে হোটেল রুমেই ছিলেন সোনিয়া। এ সময় বিস্ফোরণ ঘটে। আজ জায়ানের মরদেহ আসছে এদিকে জায়ান চৌধুরীর মরদেহ আজ শ্রীলংকা থেকে দেশে আনা হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মোহাম্মদ হুমায়ুন। শেখ সেলিমের জামাতা প্রিন্স কলম্বোর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় এখনই তাকে দেশে আনা সম্ভব হচ্ছে না বলে শিল্পমন্ত্রী জানান। সোমবার সকালে শেখ সেলিমের বাসায় গিয়ে তাকে সান্ত্বনা জানানোর পর বেরিয়ে এসে অপেক্ষমান সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন নুরুল মজিদ হুমায়ুন। বিস্ফোরণে প্রিন্সের দুই পায়ে গুরুতর জখম হয়েছে জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, 'ওখানে তার চিকিৎসা চলছে। হি ইজ সেইফ নাও। বাট, এখনই তাকে আনা যাচ্ছে না।' শিল্পমন্ত্রী বলেন, জায়ানের মৃতু্যর খবর তার মা শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়াকে এখনো জানানো হয়নি। তাদের নিয়ে আসতে শেখ সেলিমের স্ত্রী ও ছোট ছেলে শেখ ফজলে নাইম রোববারই শ্রীলংকা গেছেন। বরুনেই থেকে বড় ছেলে শেখ ফজলে ফাহিমও শ্রীলংকায় রওনা হয়েছেন। এদিকে মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সোমবার সকাল থেকেই শেখ ফজলুল করিম সেলিমের বনানীর বাসায় যাওয়া শুরু করেন। তারা শেখ সেলিমের পরিবারের প্রতি সান্ত্বনা জানান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানিবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুলস্নাহ, সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনও ছিলেন তাদের মধ্যে। নাতির জন্য কবরের জায়গা দেখতে বেলা ১২টার পর বাসা থেকে বের হয়ে বনানী কবরস্থানে যান শেখ ফজলুল করিম সেলিম। কিছুক্ষণ পর তিনি ফিরে আসেন। তবে সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। এ সময় সাবেক স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, 'শেখ সেলিমের জামাতা খুব বাজেভাবে আহত হয়েছেন। তার দুটি পা ড্যামেজ (অকেজো) হয়ে গেছে। কমপক্ষে ১৫ দিন না গেলে তাকে হাসপাতাল থেকে মুভ করানো সম্ভব হবে না।' শেখ সেলিমের বাসা থেকে বের হয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, 'মঙ্গলবার জায়ান চৌধুরীর লাশ বাংলাদেশে আসবে। আমরা যারা দেখতে আসছি তারা সবাই শেখ সেলিমকে সান্ত্বনা দিচ্ছি।' প্রধানমন্ত্রীকে দেখলেই দাদু বলে জড়িয়ে ধরত জায়ান শ্রীলংকায় হোটেলে ভয়াবহ বোমা হামলায় নিহত ৮ বছরের ছোট্ট জায়ান ছিল বেশ আদুরে। পরিবারের সবাইকে মাতিয়ে রাখত। জায়ান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও বেশ প্রিয় ছিল। সে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা হলেই দাদু বলে জড়িয়ে ধরত। এ তথ্য জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। জায়ানের মৃতু্যর সংবাদ দিয়ে পলক তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে লিখেছেন- 'আদুরে জায়ান দেখা হলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দাদু বলে জড়িয়ে ধরত! মহান আলস্নাহ তাকে বেহেশত দান করুন। আমিন।' প্রতিমন্ত্রী পলকের স্ট্যাটাসে যে ছবিটি দেয়া হয়েছে, সেটি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জায়ানের। সেখানে দেখা যাচ্ছে জায়ান প্রধানমন্ত্রীকে ধরে চুমু খাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীও আদরের নাতির সঙ্গে খুনসুটি করছেন। পলকের স্ট্যাটাসের নিচে শাহনাজ পারভীন নামে একজন কমেন্ট করেছেন, 'এই সুন্দর মুহূর্ত শুধুই এখন স্মৃতি, আলস্নাহ জায়ান সোনাকে তুমি শহীদের মর্যাদা দান কর।' ছোট্ট জায়ান আর ক্রিকেট খেলবে না শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরী ক্রিকেট খেলতে খুব ভালোবাসতো। প্রতিদিন বিকাল হলেই ব্যাট-বল হাতে বাসার নিচে চলে যেত। জায়ান চৌধুরী আর ক্রিকেট খেলবে না। শেখ সেলিমের বাসার বিপরীতে ১০ নম্বর বাসার গাড়িচালক জাহিদ এসব কথা বলেন। তিনি বিলাপ করে বলেন, 'ছেলেটা মারা যাওয়ার খবর শুনে নিজেকে খুব খারাপ লাগছে। বাসার কেয়ারটেকারের সঙ্গে সে ক্রিকেট খেলত। অনেক সময় বল বাসার বাইরে রাস্তায় ফেলে চলে আসত। আমি ওই বল কুড়িয়ে আবার ভেতরে পাঠাতাম। ছেলেটা প্রতিদিন বিকাল হলেই বল ও ব্যাট নিয়ে নিচে নেমে বাসার কেয়ারটেকারদের সঙ্গে খেলত।' তিনি বলেন, 'উত্তরা সান-বীম স্কুলের ক্লাস টুয়ের ছাত্র জায়ান চৌধুরী ছেলে হিসেবে খুব ভালো ছিল। শান্ত মেজাজের ছেলে ছিল সে।'



মরদেহ আসবে বুধবার

এদিকে শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীর মরদেহ বুধবার শ্রীলঙ্কা থেকে দেশে আনা হবে বলে জানিয়েছেন পরিবারের একজন আত্মীয়।

শেখ সেলিমের ভাগ্নে আশিকুর রহমান সোমবার বলেন, বুধবার বেলা ১১টায় একটি ফ্লাইটে জায়ানের কফিন দেশে আসবে। আসরের পর চেয়ারম্যানবাড়ি মাঠে হবে জানাজা।

এর আগে শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মোহাম্মদ হুমায়ুন সকালে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, জায়ানের মরদেহ আসবে মঙ্গলবার।

এ বিষয়ে আশিক বলেন, ‘তখন পর্যন্ত বিষয়টা ওই রকমই ছিল। পরে পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে।’ 



 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে