logo
মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৬

  হাসান মোলস্না   ১০ জুলাই ২০২০, ০০:০০  

করোনা সংক্রমণের মূল প্রবাহ আগস্টে : ডা. জাফরুলস্নাহ

করোনা সংক্রমণের মূল প্রবাহ আগস্টে : ডা. জাফরুলস্নাহ
ডা. জাফরুলস্নাহ
গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুলস্নাহ চৌধুরী বলেছেন, পরিসংখ্যান দেখে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার কমছে ভাবার কোনো কারণ নেই। আগস্টে সংক্রমণের মূল প্রবাহ আসবে। তখন সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি আরও বেড়ে যেতে পারে। বৃহস্পতিবার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধান কার্যালয়ে যায়যায়দিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি একথা বলেন।

মরণব্যাধি করোনাভাইরাস জয় করলেও এখন শারীরিকভাবে পুরোপুরি সুস্থ হননি তিনি। বিশেষ করে তার কথা বলতে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে। গণস্বাস্থ্যের চিকিৎসরা তাকে ৪২ দিন সম্পূর্ণ বিশ্রাম নিতে এবং ভিজিটরদের সঙ্গে দেখা ও কথা না বলার পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু এক্ষেত্রে চিকিৎসকদের পরামর্শ তিনি পুরোপুরি মানছেন না।

তিনি বলেন, করোনাকালীন এই সময়ে দেশ ও জনগণের যে দুরবস্থা তা চিন্তা করলে ১ ঘণ্টাও রেস্ট থেকে বা কথা না বলে থাকা সম্ভব না। কথা বললেও গলার স্বর নীচু তার। একেবারে আস্তে আস্তে খুব স্বল্প কথা বলতে পারছেন। আর কাশিও আছে।

নিজের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জাফরুলস্নাহ চৌধুরী বলেন, কথা বলতে হচ্ছে আস্তে আস্তে। নিয়মিত কিডনি ডায়ালাইসিস করছেন। অক্সিজেন প্রয়োজন হয় না। শরীরে ভাইরাস সংক্রমণ আছে, তবে অনেকটা নিয়ন্ত্রণে। নিয়মিত খাওয়া দাওয়া করছেন। আগের চেয়ে বেশি হাঁটাহাঁটি করতে পারেন। শারীরিক অবস্থা

উন্নতির দিকে। পূর্ণ সুস্থ হতে আরও বেশ কিছুদিন হাসপাতালে থেকে চিকিৎসা নিতে হবে।

আগস্টে সংক্রমণ বাড়ার কারণ কী জানতে চাইলে ডা. জাফরুলস্নাহ বলেন, সংক্রমণ কমিয়ে আনতে সরকারের যে কার্যকরী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন জরুরি ছিল তা হচ্ছে না। এখন কার্যকরী কোনো পরিকল্পনারও খবর আসছেনা। শুধু লুটপাটের খবর আসছে। এইভাবে চলতে থাকলে আগস্টে সংক্রমণ আরও বৃদ্ধি না পাওয়ার কোনো কারণ নেই।

তিনি বলেন, সরকার একটা অন্ধকার ঘরে কালো বিড়াল খুঁজে বেড়াচ্ছে। করোনা সমস্যাটা কীভাবে সমাধান করবে তাদের চিন্তার মধ্যে নাই। করোনাভাইরাস সংক্রমণ মূল প্রবাহটা আসবে সামনের মাসে। যখন এটা গ্রাম-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়বে। সেজন্য একটা সুস্থ স্বাস্থ্য ব্যবস্থা দরকার।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্ভাবিত কিটের অনুমোদনের আশা এখনো করছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখনো আশাবাদী।

অসুস্থ শরীর নিয়ে ঠিকভাবে কথা বলতে না পারলেও প্রচন্ড ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা গেছে ডা. জাফরুলস্নাহকে। কী নিয়ে কাজ করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, মূলত করোনা চিকিৎসার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করছেন। বিশেষ করে কত কম খরচে জনগণ চিকিৎসা পেতে পারে সেই বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। তার মতে, সবাই জানে, বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যয় কেমন। মানুষ ফতুর হয়ে যায়। এই চিকিৎসায় জনগণের কত খরচ হতে পারে সেই হিসাব করছেন। পুরোপুরি হিসাবটা এখনো শেষ করতে পারেননি। তবে দ্রম্নত সময়ের মধ্যে এই বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে জাতিকে জানাবেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ মে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিটে ডা. জাফরুলস্নাহ চৌধুরীর শরীরে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। দুইদিন ধানমন্ডির বাসায় আইসোলেশনের থাকার পর ডা. জাফরুলস্নাহ গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে অধ্যাপক মামুন মোস্তাফিজ ও অধ্যাপক নাজিম মোহাম্মদের তত্ত্বাবধায়নে চিকিৎসা নেন। গত ১৩ জুন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিট ও পরে বিএসএমএমইউতে পিসিআর টেস্টে ডা. জাফরুলস্নাহ চৌধুরীর শরীরে করোনা নেগেটিভ আসে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে