logo
রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

নতুন যাত্রায় বিপাশা হায়াত

নতুন যাত্রায় বিপাশা হায়াত
বিপাশা হায়াত
বিনোদন রিপোর্ট

অনেক গুণে গুণান্বিত দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী বিপাশা হায়াত। মঞ্চ, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে সমানভাবে সফল হলেও বিয়ের পর অভিনয় থেকে নিজেকে অনেকটাই আড়াল করে রেখেছেন এ তারকা। তবে আগের মতো নাটক-সিনেমায় অভিনয় না করলেও এখন লেখালেখি করছেন নিয়মিতভাবেই। ইতোমধ্যে নাট্যকার হিসেবেও পরিচিতি পেয়েছেন বিপাশা। সম্প্রতি আরও এক অধ্যায় যোগ হচ্ছে তার ক্যারিয়ারে। এতদিন নাটক লিখে আলোচিত হলেও এবারই প্রথমবারের মত চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্য লিখতে যাচ্ছেন তিনি। তবে এ নিয়ে বিস্তারিত বলতে এখনই রাজি নন উলেস্নখ করে বিপাশা বলেন, 'প্রথমবারের মতো সিনেমার চিত্রনাট্য লিখছি। গেলো বছর থেকে সিনেমার গল্পটি মাথায় নিয়েছি। লিখতে শুরু করেছি গত অক্টোবর থেকে। আর এক সপ্তাহর মধ্যে শেষ করতে পারবো আশা করছি। শেষ করার পর কিছুদিন এটা এভাবেই থাকবে। এক মাস পর আবার পড়তে শুরু করবো এবং ঠিকঠাক করবো। আমি বলছি না আমার সিনেমার চিত্রনাট্যে কোনো বার্তা থাকবে। একেবারেই গতানুগতিক ধারার বাইরের একটা চিত্ররাট্য লেখা লিখছি। আশা করি, নাটকের মত চলচ্চিত্রটিও সুধী মহলে সমাদৃত হবে।'

বিপাশা জানান, বর্তমানে লেখালেখি নিয়ে ব্যস্ত তিনি। গত কুরবানি ঈদে তার রচনায় একাধিক নাটক প্রচার হয়েছে। নতুন আরেকটি নাটকে হাত দেবেন এই অভিনেত্রী। বলেন 'গলো ঈদে আমার লেখা তিনটি নাটক প্রচার হয়েছিলো। এখন একটি নাটকের গল্প মাথায় এসেছে। ওটা নিয়ে ভাবছি। সামনে সময় করে লিখবো।' আগামী বই মেলায় তার কোনো বই প্রকাশিত হবে কিনা জানতে চাইলে এই অভিনেত্রী বলেন, 'আসলে লিখতে চাই। গল্প অনেকদিন লিখি না। কিছু অনুভূতি আছে যা কী না গল্পের ভেতর দিয়ে প্রকাশ করা যায়। সামনের বইমেলায় কিছু থাকছে না। তবে নতুন কিছু লিখছি।'

অভিনয়ে নিয়মিত না হলেও অভিনয়ের প্রতি বিপাশার আগ্রহের কমতি নেই। কখনো কখনো দু/একটি টিভি নাটকে অভিনয়ও করেন। তবে ফেলে আসা অভিনয়ের মঞ্চ এখনো তাকে টানে। মঞ্চে ফেরার ইচ্ছেও প্রকাশ করলেন বিপাশা। বলেন, 'টিভি নাটক কমই করছি। মঞ্চ আসলে আমাকে এখনো টানে। আজও মঞ্চের কথা অনেকটা সময় ভেবেছি। ২০২০ সালে মঞ্চে ফিরবো প্রত্যাশা করছি। সেটি অভিনয় দিয়েই হবে তা বলছি না। কিন্তু মঞ্চে ফিরতে চাই। মঞ্চ টানে খুব করে।' বিপাশার আরেকটি বড় পরিচয় তিনি একজন চিত্রশিল্পী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা শিক্ষার্থী ছিলেন। তাই রং-তুলির আঁচরে এখনো ক্যানভাস রাঙান। বিপাশার চিত্রকর্ম দেশে বিদেশে সুনাম কুঁড়িয়েছে। তার বাবা অভিনেতা আবুল হায়াতের লেখা প্রায় বইয়ের প্রচ্ছদ বিপাশার করা। তিনি বলেন, 'ছবি শুধু দেখার নয়, ছবিতে জিজ্ঞাসা থাকে। ছবিতে জিজ্ঞাসাটা রাখি। আবার যখন নাটক লিখি, সেই নাটক লেখার ভেতর দিয়ে দর্শকদের কাছে একটা জিজ্ঞাসা পৌঁছে দিতে চাই। শিল্প তো মানুষকে পরিশুদ্ধ করে। মানুষ যখন শিল্প-সংস্কৃতির সঙ্গে যুক্ত থাকবেন, তখন নেতিবাচক কাজগুলো কম হবে। দেখুন, একজন মানুষ যখন সিনেমা দেখেন, গান শুনেন, ছবি আঁকেন, অভিনয় করেন, তখন নেতিবাচক কিছু নিয়ে ভাবেন না।'

অভিনয়, ছবি আঁকা, নাটক লেখার মাধ্যম নিয়ে তিনি বলেন, 'আমি ছবিতে যা প্রকাশ করতে পারি না, তা নাটক লিখে প্রকাশ করি। আবার নাটকে যা প্রকাশ করতে পারি না, তা ছবিতে প্রকাশ করি। আবার গল্প লিখে সেখানেও প্রকাশ করি। যারা সৃজনশীল কাজ করেন তাদের মূল লক্ষ্য থাকে দর্শক। দর্শকদের ঠকানো সহজ না। তারা অনেক খোঁজ রাখেন। সবকিছু তো আসলে মানুষের জন্য।'

দীর্ঘদিন ধরে শিল্পের সঙ্গেই আছেন বিপাশা। শিল্পী জীবন বেছে নিয়েছেন। এ জীবন নিয়ে তিনি বলেন, 'শিল্পীজীবন ভীষণ ভালো লাগে। শিল্প ছাড়া জীবন কল্পনা করতে পারি না। শিল্পের যে কোনো শাখা দিয়ে জীবনকে সুন্দর করা যায়। শিল্পের পথে থেকে প্রতি মুহূর্তে নতুন নতুন ভাবনা কাজ করে। শিল্পীজীবন সুন্দর করে উপভোগ করা যায়।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে