logo
বুধবার ২৬ জুন, ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ১২ জুন ২০১৯, ০০:০০  

উচ্চমাত্রার ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধের পথে ফিরে গেল ইরান

জানালো আনবিক শক্তি সংস্থা মার্কিন নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই আজ তেহরান সফরে যাচ্ছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী

উচ্চমাত্রার ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধের পথে ফিরে গেল ইরান
উচ্চমাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের পথে ফিরে যাওয়ার যে হুমকি ইরান দিয়েছিল, সে অনুযায়ী কাজ শুরু করেছে দেশটি। সোমবার আন্তর্জাতিক আনবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) এ কথা জানিয়েছে। এদিকে, ইরানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই দেশটি সফরে যাচ্ছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। আজ (বুধবার) রাষ্ট্রীয় সফরে তার তেহরান পৌঁছানোর কথা। সফরের একদিন আগে মঙ্গলবার ফোনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। সংবাদসূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, আনাদলু, পার্স টুডে

আইএইএ প্রধান ইউকিয়া আমানো বলেছেন, ইরান এখন আগের তুলনায় আরও বেশি মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করছে। তবে এ সমৃদ্ধ ইউরেনিয়ামের মজুদ কখন পরমাণু চুক্তিতে উলেস্নখিত সীমা অতিক্রম করবে তা স্পষ্ট করা হয়নি। ইরানের পরমাণু ইসু্য নিয়ে বাড়তে থাকা উত্তেজনায় উদ্বেগও প্রকাশ করেছেন আমানো।

আইএইএ এর আগে মে মাসেই তাদের সর্বশেষ ত্রৈমাসিক প্রতিবেদনে ইরানের ২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তি মেনে চলার কথা জানায়। ওই প্রতিবেদনের পর থেকে ইরান সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম উৎপাদন বাড়িয়েছে কিনা- এ প্রশ্নের জবাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে আমানো বলেন, 'হঁ্যা, উৎপাদনের হার বাড়ছে।' তবে এ উৎপাদন কতটুকু বেড়েছে, কিংবা তা পরমাণু চুক্তির সীমার মধ্যেই আছে কিনা তা আমানো বলেননি।

ইরান গত মাসে বলেছিল, তারা পরমাণু চুক্তি মেনে চলছে। তবে তারা আরও বেশি হারে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ শুরু করবে বলে হুমকিও দিয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা থেকে ইরান ইউরোপীয় দেশগুলোর কাছে সুরক্ষা দাবি করেছে। এ সুরক্ষা না পেলে ইরান ৬০ দিনের মধ্যে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ শুরু করবে বলে ওই হুমকি দেয়। গতমাসে ইরান পরমাণু চুক্তির কিছু প্রতিশ্রম্নতি থেকেও সরে এসেছে।

২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তি থেকে গত বছর যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপরই ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালসহ নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন তিনি। তবে পরমাণু চুক্তিতে স্বাক্ষর করা ইউরোপীয় দেশগুলো এখনো ট্রাম্পের পথে না হেঁটে চুক্তিটি সমর্থন করছে। সর্বশেষ গত মাসে বেশ কয়েকটি ইসু্যতে ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাগ্‌যুদ্ধ চলছে।

এরই মধ্যে সোমবার জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস ইরান সফর করেছেন। ওয়াশিংটন-তেহরান বাগ্‌যুদ্ধের পর মাসই প্রথম শীর্ষ পশ্চিমা কর্মকর্তা যিনি ইরান সফর করছেন। সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, 'এই অঞ্চলের পরিস্থিতি উচ্চমাত্রায় বিস্ফোরোন্মুখ ও চরম গুরুতর। বিদ্যমান বিপজ্জনক উত্তেজনা শেষ পর্যন্ত সামরিক উত্তেজনার দিকেও নিয়ে যেতে পারে।'

ইরান সফরে যাচ্ছেন জাপানি প্রধানমন্ত্রী : এদিকে, বুধবার সরকারি সফরে তেহরান যাচ্ছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। এমন এক সময় তিনি তেহরান যাচ্ছেন, যখন ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা শুরু হয়েছে। তবে এই সফরের আগে আবে টেলিফোনে কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে।

জানা গেছে, মঙ্গলবারের ফোনালাপে ইরান পরিস্থিতি ছাড়াও আঞ্চলিক নানা বিষয় নিয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী। টোকিওতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জাপানের মন্ত্রিপরিষদ বিষয়ক সচিব ইয়োশিহিদে সুদা দুই নেতার ফোনালাপের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে