logo
বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ২৪ আষাঢ় ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ০১ জুন ২০২০, ০০:০০  

বেজায় চটেছে চীন

হংকং প্রসঙ্গ নিরাপত্তা পরিষদে তুলল যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য

হংকং প্রসঙ্গ নিরাপত্তা পরিষদে তুলল যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য
মার্কনি প্রসেডিন্টে ডােনাল্ড ট্রাম্প
আর শুধুই তোপ দাগা নয়, করোনার 'বদলা' নিতে এবার হংকং ইসু্য শনিবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে তুলেছে যুক্তরাষ্ট্র। তার পুরনো উপনিবেশ বলে জাতিসংঘে সরব হয়েছে যুক্তরাজ্যও। দুটি দেশই হংকংয়ের নিরাপত্তা সংক্রান্ত আইনটির দিকে আঙুল তুলেছে নিরাপত্তা পরিষদে। তার ফলে, বেজায় চটেছে চীন। জানিয়েছে, এটা আন্তর্জাতিক মঞ্চে তোলার মতো কোনো ইসু্যই নয়। সংবাদসূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, পিটিআই

যুক্তরাজ্যের পুরানো উপনিবেশ হংকংয়ে চীনের ভূমিকা নিয়ে শনিবার হোয়াইট হাউসে একরাশ ক্ষোভ প্রকাশ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, 'বেইজিং হংকংয়ের দীর্ঘদিনের গর্ব ও ঐতিহ্যকে নষ্ট করে দিচ্ছে। এটা হংকংয়ের মানুষের পক্ষে তো বটেই, চীন আর গোটা বিশ্ববাসীর জন্যও হৃদয় বিদারক ঘটনা।' তিনি জানান, এসবের প্রতিবাদেই হংকংকে দেওয়া কিছু বিশেষ সুযোগ-সুবিধা তুলে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ট্রাম্প বলেন, 'হংকংকে যে সব বিশেষ সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়, আমি আমার প্রশাসনকে সেই সব প্রত্যাহার করে নিতে বলেছি।'

সেই বিশেষ সুযোগ সুবিধাগুলো কী কী, তা-ও জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। জানিয়েছেন, এর ফলে বন্দি প্রত্যর্পণ, প্রযুক্তি সহায়তা, রপ্তানির মতো বহু ক্ষেত্রে যেসব সুযোগ সুবিধা দেওয়া হতো হংকংকে, দু-একটি বাদে সেইগুলো আর দেওয়া হবে না। শুধুই হংকংই নয়, যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া চীনা শিক্ষার্থীদের একাংশের ওপরেও বিধিনিষেধ আরোপ করতে চলেছে দেশটি। চীনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুক্ত শিক্ষার্থীদের মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

ট্রাম্পের অভিযোগ, 'বছরের পর বছর ধরে চীনা সরকার আমাদের শিল্পের গোপন তথ্য হাতিয়ে দেওয়ার জন্য গুপ্তচরবৃত্তি চালাচ্ছে।' ট্রাম্পের এই অভিযোগের ভিত্তি এফবিআইয়ের দেওয়া তথ্য। তাতে জানা গেছে, গত ফেব্রম্নয়ারি পর্যন্ত অর্থনৈতিক গুপ্তচরবৃত্তি ও প্রযুক্তি চুরির এক হাজার অভিযোগের তদন্ত করছে মার্কিন ওই গোয়েন্দা সংস্থাটি, যার প্রতিটি ক্ষেত্রেই চীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। তথ্য বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া বিদেশি শিক্ষার্থীদের মধ্যে চীন থেকেই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থী যায়। সেই সংখ্যাটা তিন লাখ ৭০ হাজারের মতো। তবে বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে সেই প্রক্রিয়া এমনিতেই বেশ খানিকটা ধাক্কা খেয়েছে।

দুনিয়াজুড়ে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে নিয়ে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে কূটনৈতিক উত্তেজনা ক্রমেই বাড়ছিল। সম্প্রতি তার সঙ্গে যোগ হয়েছে হংকং ইসু্য। বৃহস্পতিবার ওই বিতর্কিত আইন পাস হয় চীনে। এরপর 'ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেসে'র (এনপিসি) স্ট্যান্ডিং কমিটি ওই আইনটির খসড়া তৈরি করবে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে