logo
মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ২৩ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০  

অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম ২১ বছরের সর্বনিম্নে

অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম ২১ বছরের সর্বনিম্নে

অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বাজারে বিদ্যমান টালমাটাল অবস্থা কোনোভাবেই সামাল দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এরই মধ্যে সৌদি আরব-রাশিয়ার মধ্যকার মূল্যযুদ্ধের লাগাম টানার চেষ্টা করা হয়েছে। ওপেক-নন ওপেক দেশগুলো সম্মিলিত উত্তোলন কমানোর চুক্তিতে পৌঁছেছে। তবে এসব কিছুর প্রভাব জ্বালানি পণ্যটির বাজার পরিস্থিতিতে খুব সামান্যই দেখা গেছে। খাতসংশ্লিষ্টরা আশা করেছিলেন, এসব উদ্যোগ আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বাড়াবে। হয়েছে ঠিক উল্টো। নিম্নমুখী মূল্যসূচক আরও নিচের দিকে নেমেছে। এ ধারাবাহিকতায় সর্বশেষ কার্যদিবসে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কমে ২১ বছরের সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমেছে। এমনকি ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েটের (ডবিস্নউটিআই) ব্যারেল ১৫ ডলারের নিচে নেমে গেছে। খবর রয়টার্স ও বস্নুমবার্গ। সর্বশেষ কার্যদিবসে ডবিস্নউটিআইয়ের বাজার পরিস্থিতি বড় ধাক্কা খেয়েছে। এদিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে জ্বালানি পণ্যটির দাম আগের কার্যদিবসের তুলনায় ২২ দশমিক ৮২ শতাংশ কমেছে। দিন শেষে ভবিষ্যতে সরবরাহ চুক্তিতে প্রতি ব্যারেল ডবিস্নউটিআইয়ের দাম দাঁড়ায় ১৪ ডলার ১০ সেন্টে, যা আগের দিনের তুলনায় ব্যারেলপ্রতি ৪ ডলার ১৭ সেন্ট কম। ১৯৯৯ সালের মার্চের পর এটাই জ্বালানি পণ্যটির সর্বনিম্ন দাম। একই চিত্র দেখা গেছে ব্রেন্ট ক্রুডের দামেও। এদিন জ্বালানি পণ্যটির দাম কমেছে ৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ। দিন শেষে ভবিষ্যতে সরবরাহ চুক্তিতে প্রতি ব্যারেল ব্রেন্ট ক্রুড বিক্রি হয় ২৭ ডলার ১৪ সেন্টে, যা আগের দিনের তুলনায় ব্যারেলে ৯৪ সেন্ট কম। দিনের শুরুতে জ্বালানি পণ্যটির ব্যারেল ২৩ ডলার ৭৫ সেন্টে নেমে এসেছিল। বছরের শুরু থেকেই অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বাজারে নিম্নমুখী প্রবণতা বজায় রয়েছে। শুরুর দিকে নভেল করোনাভাইরাসের ধাক্কা জ্বালানি পণ্যটির দাম কমিয়ে দেয়। তখন খাতসংশ্লিষ্টরা বলেছিলেন, মহামারির কারণে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে লকডাউন চলমান থাকায় মানুষ ও যানবাহনের চলাচল সীমিত হয়ে পড়েছে। এ কারণে চাহিদা কমে জ্বালানি তেলের দরপতন ঘটেছে। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে ওপেক-নন ওপেক দেশগুলোকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উত্তোলন কমিয়ে আনার প্রস্তাব দেয় সৌদি আরব। তবে মার্চের শুরুতে ওপেক-নন ওপেকের ভিয়েনা বৈঠকে সৌদি আরবের এ প্রস্তাব বাতিল করে দেয় রাশিয়া। শুরু হয় রিয়াদ ও মস্কোর মধ্যে মূল্যযুদ্ধ। সৌদি-রুশ মূল্যযুদ্ধে নতুন করে ধাক্কা খায় অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বাজার। ওই সময় জ্বালানি পণ্যটির দাম ব্যারেলপ্রতি ৫০ ডলারের কাছাকাছি ছিল। পরবর্তী সময়ে দাম কমতে কমতে তা ব্যারেলে ২০ ডলারের কাছাকাছি নেমে আসে। একদিকে নভেল করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারি, অন্যদিকে জ্বালানি তেলের রেকর্ড দরপতন-এ দুইয়ের জের ধরে জ্বালানি পণ্যটির রপ্তানিকারকরা বিপদে পড়েন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে ওপেক-নন ওপেক দেশগুলোকে চাপ দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রুশ প্রেসিডেন্ট ভস্নাদিমির পুতিন, সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আবদুলআজিজ আল সৌদ, যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন ট্রাম্প। মূলত ডোনাল্ড ট্রাম্পের আগ্রহে ওপেক-নন ওপেক দেশগুলো জ্বালানি তেলের সম্মিলিত উত্তোলন কমিয়ে আনতে ঐতিহাসিক চুক্তি করে। এ চুক্তিতে বলা হয়েছে, অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের রেকর্ড দরপতনের লাগাম টানতে এবং মূল্যযুদ্ধ নিরসনে ওপেক-নন ওপেক দেশগুলো জ্বালানি পণ্যটির সম্মিলিত বৈশ্বিক উত্তোলন দৈনিক গড়ে ৯৭ লাখ ব্যারেল কমিয়ে আনবে। এর মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেল সরবরাহ ২০ শতাংশ কমে আসবে। ওপেকের ইতিহাসে সংশ্লিষ্ট দেশগুলো আগে কখনই অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন এতটা কমায়নি। আগামী ১ মে থেকে নজিরবিহীন এ চুক্তিটি কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে। সৌদি আরব, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সই হওয়া এ চুক্তি অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় বাড়াতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশা করেছিলেন খাতসংশ্লিষ্টরা। তবে এখনো এর দৃশ্যমান কোনো ফলাফল চোখে পড়েনি। বরং জ্বালানি তেলের দাম কমে ২১ বছরের সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমেছে। এ বিষয়ে সিডনিভিত্তিক পণ্যবাজারবিষয়ক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান সিএমসি মার্কেটসের জ্যেষ্ঠ বাজার কৌশলবিদ মাইকেল ম্যাকার্থি বলেন, ওপেক-নন ওপেকের উদ্যোগ এখনো বাজারে প্রভাব ফেলতে পারেনি। বরং নভেল করোনাভাইরাসের কারণে চাহিদায় রেকর্ড পতন জ্বালানি তেলের দাম আরও কমিয়ে দিয়েছে। তিনি জানান, ২০০৯ সালের পর থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক চাহিদা ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে। তবে ২০১৭ সাল থেকে চাহিদা প্রবৃদ্ধি অনেকটাই কমে এসেছে। চলতি বছর বৈশ্বিক মহামারির কারণে জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক চাহিদা ও চাহিদা প্রবৃদ্ধি-দুটোই ঋণাত্মক হতে পারে। মূলত এ চ্যালেঞ্জ আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের রেকর্ড দরপতনের পেছনে প্রভাবক হিসেবে কাজ করছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে