logo
সোমবার, ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ১০ জুলাই ২০২০, ০০:০০  

চট্টগ্রাম বন্দরের নতুন সদস্য কমোডর নিয়ামুল

চট্টগ্রাম বন্দরের নতুন সদস্য কমোডর নিয়ামুল
কমোডর মোহাম্মদ নিয়ামুল হাসান

কমোডর মোহাম্মদ নিয়ামুল হাসান, ৮ জুলাই চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রকৌশল) হিসেবে যোগদান করেন। তিনি বিদায়ী সদস্য (প্রকৌশল) ক্যাপ্টেন এম মহিদুল হাসানের কাছ থেকে ওইদিন দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। কমডোর মোহাম্মদ নিয়ামুল হাসান ১৯৮৮ সালের ১ জানুয়ারি বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীতে অফিসার ক্যাডেট হিসেবে যোগদান করেন এবং ১ জুলাই ১৯৯০ ইলেকট্রিক্যাল শাখার কমিশন লাভ করেন। কম্পিটেন্সি সার্টিফিকেট অর্জনের পর তিনি নৌবাহিনীর বিভিন্ন ছোট, মাঝারি জাহাজ ও ফ্রিগেটে ইলেকট্রিক্যাল অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) হতে ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং-এ স্নাতক এবং পরবর্তীতে একই বিশ্ববিদ্যালয় হতে কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং-এ স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরবর্তীতে তিনি রয়াল নেভী, ব্রিটেন এ সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজমেন্ট এ উচ্চতর কোর্স সম্পন্ন করেন। এ ছাড়াও তিনি দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন কোর্সে অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি যুক্তরাজ্যের এঅ্যান্ডপি টাইন শিপইয়ার্ডে ক্যাসেল ক্লাস অফসোর পেট্রোল ভেসেলের রিজেনারেশন প্রজেক্ট-এর সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি চাকরি জীবনে বিভিন্ন স্টাফ, প্রশিক্ষণ ও অধিনায়কত্বের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। বিএন ডকইয়ার্ডে তিনি ডিজিএম (ইলেকট্রিক্যাল) এবং নৌ-সদর দপ্তরের নৌ-অস্ত্র ও বিদু্যৎ প্রকৌশল পরিদপ্তরে উপ-পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে নৌ সদর দপ্তরে টেকনিক্যাল স্টোরস-পরিদপ্তরের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তিনি সশস্ত্র বাহিনীর বিভাগের গোয়েন্দা অধিদপ্তরে কর্নেল স্টাফের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি নৌবাহিনীর কারিগরি প্রশিক্ষণ ঘাঁটি, বানৌজা শহীদ মোয়াজ্জমে প্রশিক্ষক ও পরবর্তীতে ইলেকট্রিক্যাল স্কুলের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি মিলিটারি ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ইইসিই বিভাগে প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন। পরবর্তীতে তিনি সিলেট ক্যাডেট কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ নৌবাহিনী নেভাল এভিয়েশন-এর মেইন্টেন্যান্স উইং-এর প্রথম অধিনায়ক হিসেবে দীর্ঘ সময় দায়িত্ব পালন করেছেন। আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে তিনি জাতিসংঘ মিশনে মিলিটারি অবজারভার হিসেবে লাইবেরিয়াতে নিয়োজিত ছিলেন। চট্টগ্রাম বন্দরে যোগদানের পূর্বে তিনি বিএন কলেজ ঢাকার অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ব্যক্তিগত জীবনে শারমিন সুলতানা তার স্ত্রী এবং তারা এক কন্যা ও ২ পুত্র সন্তানের জনক-জননী। অবসরে তিনি বই পড়া, সাঁতার কাটা এবং গলফ খেলতে পছন্দ করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে