logo
সোমবার ২২ এপ্রিল, ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬

  শামীমা জান্নাত   ০৩ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০  

মহাকাশ রহস্য উন্মোচনে বিজ্ঞানীরা

মহাকাশ রহস্য উন্মোচনে বিজ্ঞানীরা
রকেট মোটরের সহায়তায় শব্দের চেয়েও চারগুণ দ্রæতগতিতে যানটি নিক্ষেপ করা হয়েছিল এবং যানটি ১ লাখ ২০ হাজার ফুট ওপরে পৌঁছাতে মাত্র দুই ঘণ্টা সময় নিয়েছিল বলেই জানিয়েছে নাসা। শনিবার ১৫ কোটি মাকির্ন ডলারের এই পরীক্ষাটি চালানো হয়। হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের কাওয়াইয়ের একটি সামরিক ঘঁাটি থেকে যানটি ওড়ার পর নেমে আসার সময় প্যারাসুটে জট পাকিয়ে প্রশান্ত মহাসাগরে আছড়ে পড়ে। তবে এটাকে ব্যথর্তা হিসেবে না দেখে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন প্রকৌশলীরা। ভবিষ্যতের পরীক্ষাগুলোয় এটা অনেক সাহায্য করবে বলে মনে করছেন তারা। যানটির ‘বø্যাকবক্স’ খুঁজতে এরই মধ্যে একটি জাহাজ রওনা হয়েছে। বø্যাকবক্সে এমন কিছু তথ্য আছে, যা বিশ্লেষণ করে দেখতে চান বিজ্ঞানীরা। তাদের ধারণা, এর থেকে অনেক গুরুত্বপূণর্ তথ্য পাওয়া সম্ভব।

ঠিক কতটা সময় পৃথিবীর বাইরে, মহাকাশে নিরাপদ থাকতে পারেন একজন নভোচারী? এ ব্যাপারটি পরীক্ষা করে দেখতে ৩৫০ দিন অথার্ৎ প্রায় এক বছরের জন্য দুজন নভোচারী মহাকাশে অবস্থান করতে যাচ্ছেন।

দীঘর্সময় মহাকাশযানে অবস্থানের অভিজ্ঞতাটি কেমন? এ সময়ে মহাকাশের তেজস্ক্রিয়তায় নভোচারীর কি কোনো ক্ষতি হবে? এত সময় ওজনশূন্য পরিবেশে তাদের অবস্থা কেমন হবে? আর একা একা থাকার অনুভ‚তিটিই বা কেমন?

২০০৭ সালে অ্যাস্টেরয়েড বেল্টের উদ্দেশে উৎক্ষেপণ করা হয় একে। এর আগে সে এক বছর কাটায় ভেস্তা গ্রহাণু পযের্বক্ষণ করে। সেরেস হলো এর দ্বিতীয় এবং শেষ গন্তব্যস্থল। পরবতীর্ ১৬ মাস ধরে সে সেরেসের বরফে ঢাকা পৃষ্ঠের ছবি তুলে পাঠাতে থাকবে।

সেরেসের কাছাকাছি পৌঁছাতেই এর পৃষ্ঠের ছবি পাঠাতে শুরু করে দিয়েছে ডন। কিছু বিভ্রান্তিকর ছবি পাওয়া গেছে ইতোমধ্যে। একটি ছবিতে দেখা যায়, বড় একটি গতের্র ভেতরে সাদাটে কিছু ছোপ, যা হতে পারে লবণ অথবা বরফে তৈরি। সেরেসের আরো কাছে গেলে এসব এলাকা আরো স্পষ্ট করে দেখা যাবে। শুধু তাই নয়Ñ অতীতে সেরেসের পৃষ্ঠে পানির ফোয়ারা দেখা গিয়েছিল। এই ঘটনা কী এখনো দেখা যায় কিনা তা পযের্বক্ষণ করবে ডন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
অাইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে