logo
সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

  আইন ও বিচার ডেস্ক   ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

পো ল্যা ন্ড

বিচারক বরখাস্তের বিতর্কিত বিল অনুমোদন

বিচারব্যবস্থার সংস্কারে সরকারি দলের মতের বিরুদ্ধাচরণকারী বিচারকদের সহজে বরখাস্ত করার সুযোগ রেখে করা একটি বিলে অনুমোদন দিয়েছে ইউরোপের দেশ পোল্যান্ডের পার্লামেন্ট। ২০ ডিসেম্বর শুক্রবার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে বিতর্কিত এ বিলটি ২৩৩-২০৫ ভোটে গৃহীত হয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সংসদের নিম্নকক্ষে পাস হওয়ায় বিলটি এখন উচ্চকক্ষে যাবে। দেশটির আইন অনুযায়ী, উচ্চকক্ষ বিলটি খারিজ করতে পারবে না, তবে চাইলে এর প্রয়োগে দেরি করিয়ে দিতে পারবে।

ইউরোপিয়ান কমিশন পোল্যান্ডকে তাদের বিচার ব্যবস্থা সংস্কারের প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার অনুরোধ জানিয়েছিল। কিন্ত সেই অনুরোধ রাখেননি পোলান্ডের সংসদের নিম্নকক্ষ। ইউরোপিয়ান কমিশনের থেকে অনুরোধ জানানোর কয়েক ঘণ্টা পর নিম্নকক্ষে এ ভোট হলো।

পোল্যান্ডের ভেতরেও এই সংস্কার ও বিতর্কিত বিলটি নিয়ে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা চলছে। চলতি মাসের শুরুর দিকে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী বিলটির বিরুদ্ধে সমাবেশও করেছে। এ ছাড়া বিচারব্যবস্থার সংস্কারের কারণে পোল্যান্ডকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়তে হতে পারে বলে দেশটির সুপ্রিম কোর্টও ইতোপূর্বে সতর্ক করেছে।

ক্ষমতাসীন ল' অ্যান্ড জাস্টিস পার্টির (পিআইএস) আনা এ বিলটিতে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে যুক্ত বিচারকদের শাস্তি দেয়ার বিধান রাখা রয়েছে। নতুন আইনের বিধান অনুযায়ী, ন্যাশনাল কাউন্সিলের মনোনীত বিচারকের বৈধতা নিয়ে অন্য কোনো বিচারক প্রশ্ন তুললে তার জরিমানা ও বেতন কাটা, এমনকি চাকরিচু্যতিরও সুযোগ রয়েছে।

নিম্নকক্ষের সাংসদরাই যেন ন্যাশনাল কাউন্সিলের সদস্যদের মনোনয়ন দিতে পারেন সে জন্য গত বছর আইনও সংশোধন করেছিল পিআইএস।

ক্ষমতাসীন এ দলটি বলছে, দুর্নীতি দমন ও বিচার ব্যবস্থাকে আরও দক্ষ করে তুলতেই তাদের এই সংস্কার প্রস্তাব। কমিউনিস্ট যুগ এখনও পোল্যান্ডের বিচারব্যবস্থাকে তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে বলে অভিযোগ পিআইএসের। ইউরোপের অনেক দেশেই বিচারক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় রাজনীতিকদের অন্তর্ভুক্ত করা হয় বলেও দাবি রক্ষণশীল এ দলটির।

তবে সমালোচকরা বলছেন, এমন সংস্কার পোল্যান্ডের বিচারব্যবস্থার স্বাধীনতাকে খর্ব করবে। ২০১৫ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে পিআইএস বিচারব্যবস্থার রাজনৈতিকীকরণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে খোদ ইউরোপীয় ইউনিয়নই।

'পোল্যান্ডের বিচারব্যবস্থার স্বাধীনতা এমনিতেই ব্যাপক ঝুঁকির মধ্যে আছে। নতুন এ আইন ওই ঝুঁকি আরও বাড়িয়ে তুলবে,' বলেছেন জাতিসংঘ মানবাধিকার হাইকমিশনারের এক মুখপাত্র।

এতসব বিরোধিতা ও সমালোচনার মুখে বিলটি নিয়ে পোল্যান্ডের সংসদের উচ্চকক্ষ কিভাবে অগ্রসর হয় এখন সেটাই দেখার বিষয়।

ইন্টারনেট অবলম্বনে
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে