logo
মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

  কৃষি ও সম্ভাবনা ডেস্ক   ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০  

কম খরচে ধান শুকাবে বিএইউ এসটিআর ড্রায়ার

কম খরচে ধান শুকাবে বিএইউ এসটিআর ড্রায়ার
প্রচলিত পদ্ধতিতে ধানকে চাল এবং চালকে ভাত করে খাবার টেবিলে পৌঁছাতেই ১৪ ভাগই অপচয় হয়। একই সঙ্গে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় ধান শুকাতে প্রচুর দুর্ভোগও পোহাতে হয়। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য উদ্ভাবন করা হয়েছে বিএইউ-এসটিআর ড্রায়ার (ধান শুকানো যন্ত্র)। বিদু্যৎ ব্যবহারে এ যন্ত্রটিতে মাত্র ৭৪ পয়সায় ১ কেজি ধান শুকানো যাচ্ছে। জ্বালানি হিসেবে ডিজেল ব্যবহারে যন্ত্রটিতে মাত্র ৮৭ পয়সায় প্রতি কেজি ধান শুকানো যাচ্ছে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় এ ড্রায়ার পরীক্ষামূলকভাবেও ব্যবহার করা হয়েছে। এতে দেখা যাচ্ছে- এ ড্রায়ারে মাত্র ৩ থেকে ৪ ঘণ্টায় ৫শ' কেজি ধান শুকানো যায়। আর ধান বীজের অঙ্কুরোদগম ক্ষমতাও থাকছে প্রায় ৯০ ভাগ। এখন দরকার যন্ত্রটির ব্যাপকভাবে সম্প্রসারণ। গত বুধবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) 'সাসটেইনেবল এগ্রিকালচার মেকানাইজেশন অ্যান্ড পোস্ট হারভেস্টে প্র্যাকটিস ইন বাংলাদেশ' বার্ষিক কর্মশালায় কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মঞ্জুরুল আলম মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনের সময় এসব কথা বলেন। অ্যাপ্রোপিয়েট স্কেল ম্যাকানাইজেশন ইনোভেশন হাব (আস্মি) বাংলাদেশ, পোস্ট হারভেস্ট লস রিডাকশন ইনোভেশন ল্যাব বাংলাদেশ ফেজ (২) এবং বাকৃবির কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগ যৌথভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সম্মেলন কক্ষে ওই কর্মশালার আয়োজন করে। কর্মশালায় কৃষি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নুরুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবির সাবেক উপাচার্য ও ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. এম এ সাত্তার মন্ডল। ড. সাত্তার মন্ডল বলেন, আগে বিদেশ থেকে যন্ত্র আনার ক্ষেত্রে যন্ত্রের গুণগতমান পরীক্ষা করা হতো না। কিন্তু আমরা এখন এ বিষয়গুলোর দিকে নজর রাখছি। বর্তমানে দেশের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে যন্ত্র আবিষ্কার করা হচ্ছে। এতে আমাদের কৃষি লাভজনক হয়েছে, কমেছে যন্ত্র আমদানিতে পরনির্ভরশীলতা। অনুষ্ঠানে প্রধান পৃষ্ঠকপোষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে